• ঢাকা
  • শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০ | ১৪ চৈত্র, ১৪২৬

টাঙ্গাইলের মধুপুরে বিদেশী চিকিৎসক দম্পতি বিনা পয়সায় চিকিৎসা দিচ্ছে

টাঙ্গাইলের মধুপুরে বিদেশী চিকিৎসক দম্পতি বিনা পয়সায় চিকিৎসা দিচ্ছে

সুমন খান, টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ  অ্যামেরিকা প্রবাসী ডাক্তার দম্পতি ডা. জেসন ও তার স্ত্রী মেরিন্ডি ২০১৮ সালে বাংলাদেশের টাঙ্গাইলের একটি হাসপাতালে সাধারণ মানুষদের চিকিৎসা সেবা দিতে আসেন। মানুষ যখন দেশ ছেড়ে বিদেশ যাওয়ার জন্য সব কিছু ত্যাগ করতে প্রস্তুত, ঠিক তখনই বিলাস বহুল জীবন ছেড়ে বাংলাদেশের এক কোনে পাহাড়ী বনাঞ্চলে মানুষের সেবা করতে এসেছেন এই ডাক্তার দম্পতি। তাদের মত আরো একজন গরিবের চিকিসৎক ডাক্তার এড্রিক বেকার। যিনি দীর্ঘ ৩৬ বছর পাহাড়ী অঞ্চলের মানুষদের চিকিৎসা সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন। গড়ে তুলেছিলেন একটি হাসপাতাল।

এদেশের মানুষের ভালোবাসায় নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন। এলাকায় সবাই তাকে ভালোবেসে ডাকতো ডাক্তার ভাই নামে। ২০১৫ সালের  ১ সেপ্টেম্বর এই মহান ব্যক্তি চলে গেছেন না ফেরার দেশে। তার মৃত্যুর পর অনেকটা অসুবিধার মধ্যে পড়ে যায় হাসপাতালটি। পরবর্তীতে বিদেশী ডাক্তার দম্পতি এই হাসপাতলের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে কাজ শুরু করলে বর্তমানে সাধারণ মানুষরা পুনরায় বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন। হাসপাতাল আবারও প্রাণ ফিরে পেয়েছে।

টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার প্রত্যন্ত পাহাড়িয়া এলাকার শোলাকুড়ী ইউনিয়নের কাইলাকুড়ীতে ‘কাইলাকুড়ী স্বাস্থ্য পরিচর্যা কেন্দ্র’ নামে একটি সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠেছে। নাম মাত্র মূল্যে গরীব ও চিকিৎসা বঞ্চিত দরিদ্র মানুষদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে গড়ে তোলা হয়েছিল এই প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু ডা. বেকার মারা যাওয়ায় বিভিন্ন সময়ে বিপাকে পরেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ হাসপাতালে টাঙ্গাইল জেলা ছাড়াও ময়মনসিংহ ও জামালপুর জেলার হাজারো রোগী আসেন চিকিৎসা সেবা নিতে।

উল্লেখ্য, ১৯৪১ সালে নিউজিল্যান্ডের রাজধানী ওয়েলিংটনে এড্রিক বেকারের জন্ম। তিনি ওটাগো মেডিকেল কলেজ থেকে ১৯৬৫ সালে এমবিবিএস ডিগ্রি লাভ করেন। সেখান থেকে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডে পোস্ট গ্রাজুয়েশন করে চিকিৎসা দিতে চলে যান যুদ্ধবিধ্বস্ত ভিয়েতনামে। পরে বিভিন্ন দেশ ঘুরে ১৯৭৯ সালে বাংলাদেশে চলে আসেন।

টাঙ্গাইলের মধুুপুরের প্রত্যন্ত পাহাড়িয়া এলাকায় চিকিৎসা বঞ্চিত দরিদ্র লোকদের দেখে তার মন কেঁদে উঠে। পরে সেখানে দরিদ্র মানুষদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দেয়ার জন্য প্রতিষ্ঠা করেন ‘কাইলাকড়ী স্বাস্থ্য পরিচর্যা কেন্দ্র’। এলাকার মানুষদের ভালোবেসে সেখানেই থেকে যান এবং একটানা ৩৬ বছর মানুষদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে এই হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। হাসপাতালের পাশেই তাকে সমাহিত করা হয়।

তিনি মানুষের কল্যানে জীবন উৎসর্গ করে সারাজীবন থেকে যান চীরকুমার। গরিবের ডাক্তার হিসেবে খ্যাত এই মহান ব্যক্তিকে বাংলাদেশ সরকার ২০১৪ সালে নাগরিকত্ব প্রদান করেন। কাইলাকুড়ী গ্রামে চার একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত এই হাসপাতালে মাটির ছোট ছোট ২৩টি ঘরে হাসপাতালের ডায়াবেটিক, শিশু, ডায়রিয়াসহ ৭টি বিভাগে ৪০ জন রোগী ভর্তির ব্যবস্থা আছে। এছাড়া প্রতিদিনই আউটডোরে শতাধিক রোগীর চিকিৎসা দেয়া হয়।

এদিকে ডাক্তার বেকারের মৃত্যুর পর এই হাসপাতাল নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়ে হাসপাতালের ৯৩জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। পরে তারা বেকারের নির্দেশনা মোতাবেক হাসপাতালের হাল ধরে। বর্তমানে হাসপাতাল চলছে ডাক্তার বেকারের স্মৃতি নিয়ে। প্রতিদিনই দরিদ্র রোগীরা আসছে আর চিকিৎসা সেবা নিচ্ছে। নতুন রোগীদের জন্য ২০ টাকা আর পুরাতনদের জন্য ১০টাকা করে ফি নেয়া হচ্ছে।

নতুনভাবে অ্যামেরিকা প্রবাসী ডাক্তার দম্পতি ডা. জেসন ও তার স্ত্রী মেরিন্ডি এই হাসপাতালে সাধারণ মানুষদের চিকিৎসা সেবা দিতে আসেন। শুধু তাই নয় তাদের তিন বছরের চার সন্তানকেও নিয়ে আসেন। সেই সাথে মানুষের চিকিৎসা দেওয়ার পাশাপাশি ডা. জেসন গ্রামের রাস্তায় লুঙ্গি পরে ঘুরে বেড়ান, সহজেই মিশে যান গ্রামের সহজ-সরল মানুষদের সঙ্গে। গ্রামে থাকার কারণে তাঁরা তাদের খাদ্যাভাসও পাল্টে নিয়েছেন। এখন তাদের খাদ্য তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশি ফলমূল ও সবজি জাতীয় খাবার। গ্রামের মানুষদের সঙ্গে মিশতে মিশতে শিখে ফেলেছেন বাংলা ভাষা। এখন তাঁরা সুন্দরভাবে বাংলায় কথা বলতে পারেন। শুধু তাঁরা নয়, সন্তানদেরও বাংলা ভাষা শেখাচ্ছেন এই ডাক্তার দম্পতি। তাদের ইচ্ছা যতদিন সম্ভব এই হাসপাতালে সাধারণ মানুষের সেবা করে যাবেন।

বিভিন্ন দর্শনার্থী বলেন,  বিদেশী ডাক্তার দম্পতির এই মানবতা এক নজর দেখতে এসেছি। তারা সাধারণ মানুষদের সু চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে সব কিছু ত্যাগ করে আমাদের বাংলাদেশে এসেছেন। তাদেরকে অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীরা বলেন, এ হাসপাতালে যে ডাক্তার আছে তারা অনেক ভালো। তাদের চিকিৎসার কারনে আমরা এখন অনেক সুস্থ্য।

কাইলাকুড়ী প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিচর্যা কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক পিজন নংমিন ও নবীন চিকিৎসক নুরুন্নাহার সুমী বলেন,  ডাঃ এড্রিক বেকার যিনি এই এলাকার মানুষের কাছে 'ডাক্তার ভাই' নামে পরিচিত, তিনি মারা যাওয়ার পর আমরা অনেক সমস্যা মধ্যে পড়ে যাই। হাসপাতালে অনেক সমস্যা দেখা দেয়। পরবর্তীতে ডাক্তার দম্পতি এসে হাসাপাতালের চিকিৎসা দিতে শুরু করে। এখন আমরা নিশ্চিন্ত।

রাজধানীর সড়কগুলো এখন ফাঁকা .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ করা ঘোষণা করায় কোন টার্মিনাল থ.....

করোনা মোকাবিলায় বেশ সতর্ক ব্য.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনার কারণে মানুষের মধ্যে নানা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। রাজধানীর ব্যাংকগুলোতে সতর্কত.....

ডিএনসিসির ৯ লক্ষ বর্গফুট এলাক.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে গতকাল (মঙ্গলবার) ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন সড়ক, প্রতি.....

সাধারণ ছুটি ঘোষণার পর লোকজনের .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনাভাইরাস মোকাবিলায় আগামী ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এ .....

সারাদেশে টহল দিচ্ছে সেনাবাহি.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ মঙ্গলবার থেকে রাজশাহীসহ সারাদেশে নেমেছে সেনাবাহিনী। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সাম.....

করোনাভাইরাসঃ সরকারি অফিসে প্.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনা থেকে সুরক্ষা পেতে রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনে ডিপিডিসির প্রধান কার্যালয়ে রোববার (২২ মার্.....

করোনা আতঙ্ক, রেলওয়ে স্টেশনের ট.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনাভাইরাসের আতঙ্ক চলছে বিশ্বব্যাপী। এর প্রভাব বাংলাদেশেও পড়েছে। করোনার আতঙ্কে গত দুই দ.....

জনগণ সচেতন হচ্ছে, দিনের বেলাতে.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনা ভাইরাসের প্রভাবে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সাময়িক বন্ধ করে দেওয়ায় চ.....

করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে কু.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনাভাইরাসের আতঙ্ক চলছে বিশ্বব্যাপী। এর ফলে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা সৈকত এখন পর্যটক শূন.....

পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম ব.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনাভাইরাসের আতঙ্ককে পুঁজি করে পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম প্রায় তিন গুণ বৃদ্ধি করায় ১৪ .....

নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের ন্য.....

শনিবার (২১ মার্চ) সকাল ১১ টা থেকে ঢাকার বিভিন্ন খুচরা ও পাইকারি বাজারে একযোগে একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচাল.....

করোনা ভাইরাসঃ বিভিন্ন প্রতিষ.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইনঃ করোনা ভাইরাসের কারণে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছ.....