• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০ | ১১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭
জেলা পরিষদের একসনা লিজের অপব্যবহার

অস্তিত্ব সঙ্কটে নোয়াখালীর ঐতিহ্যবাহী মহেন্দ্র খাল

অস্তিত্ব সঙ্কটে নোয়াখালীর ঐতিহ্যবাহী মহেন্দ্র খাল

মুশফিকুর রহমান : আশি ও নব্বইয়ের দশকেও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সঙ্গে চাটখিল- রামগঞ্জ উপজেলার বাণিজ্যিক যোগাযোগের সহজ মাধ্যম ছিল মহেন্দ্র খাল। প্রায় ৫০০ বছরের পুরনো এ খাল দিয়ে মেঘনা ডাকাতিয়া নদী হয়ে ছোট-বড় ট্রলারে পণ্যসামগ্রী আনা-নেয়া করতো ব্যবসায়ীরা। এ খালের পানি এখানকার কৃষিজমির সেচের কাজে ব্যবহার করা হতো। অব্যাহত দখল আর দূষণে এখন অস্তিত্বহীন হয়ে পড়ছে ঐতিহ্যবাহী মহেন্দ্র খাল।

এক সময়কার খরস্রোতা খালটি’ এখন নালায় পরিণত হয়েছে। দিন দিন অবৈধ দখলদারদের খাল দখলের প্রতিযোগিতা ও আর ময়লা আবর্জনা দখল আর দূষণে খালটি মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম।

স্থানীয় প্রভাবশালীরা জেলা পরিষদের অস্থায়ী একসনা লিজের অপব্যবহার করে খালের উপর পাকা ভবন নির্মাণ করে পুরো খাল দখল করে নেয়। খাল দখলের ফলে পানি সরতে না পারায় মারাতœক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। খালের মাঝখানে সিমেন্টের পাকা পিলার দিয়ে ভবন নির্মানের ফলে ময়লা আবর্জনা জমে খাল ভরাট হয়ে যাচ্ছে। আর এসব আবর্জনা পচে নষ্ট হয়ে পানি দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। তাছাড়া দীর্ঘদিন ধরে খনন না করায় হাটবাজার ও আবাসিক এলাকার পতিত আবর্জনায় বন্ধ হয়ে আছে খালের প্রবহমান স্রোতধারা।

জানা যায়, মহেন্দ্র খালটি ৫০০ বছরের পুরনো। মোঘল আমলে ত্রিপুরার পাহাড়ি ঢল থেকে নোয়াখালী অঞ্চলকে রক্ষায় পানি নিস্কাষণ ও সেচ কাজের সুবিধার্থে এই খাল খনন করা হয়। ১৯০৫-১০ সালে স্থানীয় জমিদার খালটি সংস্কার করে মহেন্দ্র খাল নামে নামকরণ করেন। সবশেষ ১৯৪৬-৪৭ সালে একবার সংস্কারের পর সর্বশেষ ১৯৮০-৮১ সালে আংশিক সংস্কারের পর আর কোনো সংস্কারকাজ করা হয়নি। চন্দ্রগঞ্জের রহমতখালী খালের সংযোগ থেকে শুরু হয়ে মহেন্দ্র খালটি দুটি শাখায় বিভক্ত হয়।

এর একটি শাখা সোনাইমুড়ি-চাটখিল রামগঞ্জ হয়ে চাঁদপুরের ডাকাতিয়া নদীতে মিলিত হয়েছে। খালের অপর শাখাটি চন্দ্রগঞ্জ লক্ষীপুর রামগঞ্জ হয়ে ডাকাতিয়া নদীতে মিলিত হয়েছে। খালের একটি শাখা চাটখিল পৌরসভার সোনাইমুড়ি-রামগঞ্জ সড়কের দক্ষিন দিকে বাজার ও আবাসিক এলাকার পাশ দিয়ে বয়ে গেছে।

এলাকার কয়েকজন প্রবীণ ব্যক্তি জানান, বৃটিশ আমলে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদী হয়ে ছোট-বড় ট্রলারে করে নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামাল আনা-নেয়া করতেন এ অঞ্চলের ব্যবসায়ীরা। ঐ সময়ে চাটখিল ও সোনাপুর বাজারের সামনের ঘাটে ভিড়ত মালবাহী শত শত নৌকা ও ট্রলার।

বৃহত্তর নোয়াখালীর প্রধান বানিজ্যকেন্দ্র চৌমুহানি থেকে নৌকা ও ট্রলার যেগে মালামাল এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যেত পাইকাররা। মহেন্দ্র খাল মালামাল পরিবহনের সহজতর মাধ্যম হওয়ায় চৌমুহানি ও  সোনাপুর বাজারটি ব্যবসাকেন্দ্র হিসেবে ব্যাপক পরিচিত ছিল। পাকিস্তান আমল এমনকি বাংলাদেশ স্বাধীনতার পরও এ খাল দিয়ে ব্যাবসা-বানিজ্য যোগাযোগ ব্যাবস্থার কেন্দ্রবিন্দ ছিলো এই মহেন্দ্র খাল।

সুদূর ঢাকা, চাঁদপুর ও নারায়নগঞ্জ  থেকে বড় বড় নৌকা ও সাম্পানে করে মালামাল আসতো চৌমুহনী, চাটখিল ও সোনাপুরে। যা শুধু এখন স্মৃতি। একসময় এই খালগুলো ছোটখাটো নদীর আকৃতি থাকলেও গত দুই দশক ধরে খালের দুই পাড় দখলদারদের কবলে পড়ে পর্যায়ক্রমে এই খালগুলো নালায় পরিণত হয়েছে। এছাড়া কৃষিনির্ভর এ অঞ্চলের কৃষকরা এ খালের পানি দিয়ে ফসল ফলাতেন। নান্দনিক সৌন্দর্যের সেই খাল এখন অবৈধ দখল আর দুষণে অবহেলা-অনাদরে আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে।

চাটখিল প্রেস ক্লাবের সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক মোঃ হাবিবুর রহমান  জানান, এক সময়ের ঐতিহ্যবাহী খালটি এখন অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে। প্রশাসন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেও পুনরায় দোকানঘর তৈরী করে দখলদারেরা। সোনাইমুড়ি ও চাটখিলের বিভিন্ন জায়গায় খালের উপর বাঁধ নির্মাণের কারণে পানি প্রবাহ বন্ধ আছে। ঐতিহ্যবাহী মহেন্দ্র খালটির অস্তিত্ব এখন হুমকির মুখে। চাটখিল অংশে খালের আগের চেহারা এখন আর নেই। এ অবস্থায় অবৈধ দখল উচ্ছেদ ও খাল সংস্কার করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

এ ব্যাপারে চাটখিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ দিদারুল আলম জানান, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তবে ভ’মি জটিলতা ও জেলা পরিষদের একসনা লিজের কারণে আইনগত কিছু জটিলতা রয়েছে। বিগত বছরে বিভিন্ন সময়ে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছি। গত বছর রমজান মাসে প্রায় দু'শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ বিষয়ে একটি রিপোর্ট আমরা জেলায় পাঠিয়েছি। সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের বিষয়ে সহযোগিতা চাইলে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ .....

অনলাইন ডেস্ক:

জামালপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ফরিদুল হক খান ধর্ম মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছ.....

সৌদি যুবরাজ সালমানকে মুজিববর.....

অনলাইন ডেস্ক:

সৌদি আরবের যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমানকে আগামী মার্চ মাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর .....

সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ .....

অনলাইন ডেস্ক:

 

যে কোনো আগ্রাসী আক্রমণ থেকে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সদাপ্রস্তুত ও দৃঢ় সংকল.....

মেঘ-বৃষ্টি কেটে গেলেই জেঁকে বস.....

অনলাইন ডেস্ক:

সাগরে লঘুচাপের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন জায়গায় বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টি আর ঘণ কুয়াশায় শীতের উ.....

বাসের চালক-স্টাফদের নির্ধারি.....

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীসহ দেশের সব সড়কেই প্রায়ই দেখা যায়, অদক্ষ চালক। যাদের বেশির ভাগেরই ড্রাইভিং লাইস.....

বিমান বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট ও .....

নিজস্ব প্রতিনিধি : বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত, বিবিপি, ওএসপি, এ.....

মেধা দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে তরু.....

জাতীয় ডেস্ক:

নিজেদের মেধা দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে তরুণ প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ.....

পুলিশে দুর্নীতিবাজদের কোনো জ.....

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, দুর্নীতিমুক্ত, স্বচ্ছ ও জ.....

মৌসুমী তুমি কার! .....

 

লাখোকন্ঠ সংবাদ:

এক বছর পর গত শনিবার ঘোষণা করা হ.....

সাবেক ডেপুটি স্পিকার শওকত আলী .....

জাতীয় ডেস্ক: আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম অভিযুক্ত, নবম জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার কর্ন.....

আগুন সন্ত্রাস ও নাসকতা করে কেউ.....

লাখোকণ্ঠ,জামালপুর প্রতিনিধি : ১৩ নভেম্বর জামালপুর সরিষাবাড়ী উপজেলার দৌলতপুর নিজ বাড়িতে সরিষাবাড়ী উপজেলা আ.....

গৃহকর্মীদের অধিকার নিশ্চিতে .....

নিজস্ব প্রতিনিধি : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি বলেছেন, বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ গৃহকর.....