• ঢাকা
  • সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১ | ৪ মাঘ, ১৪২৭
সে মামলায় মেক্সিকো থেকে ফেরার পথে গ্রেফতার হন তিনি।

একসাথে পড়ুন ম্যারাডোনার যত বিতর্ক কাজ

একসাথে পড়ুন ম্যারাডোনার যত বিতর্ক কাজ

অনলাইন ডেস্ক:

ফুটবল বিশ্বকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়াগো ম্যারাডোনা। বুধবার নিজ বাড়িতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ৬০ বছর বয়সে মারা যান তিনি।

ফুটবল ক্যারিয়ারে বরাবরই দাপট দেখানো ম্যারাডোনা অবশ্য বিতর্ককে স্থায়ী সঙ্গী হিসেবে নিয়েছিলেন। বিশেষ করে মাদক এক সময়ে তার সবচেয়ে কাছের বস্তু হিসেবে পরিণত হয়েছিল।

ম্যারাডোনা ১৯৮০‘র দশকের মাঝামাঝি থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত কোকেনের প্রতি আসক্ত ছিলেন। তিনি ১৯৮৩ সালে বার্সেলোনায় খেলার সময় থেকেই মাদক নিতে শুরু করেন। পরে নাপোলিতে খেলার সময়ও তিনি নিয়মিত মাদক ব্যবহার করতে। যা তার ফুটবল ক্যারিয়ারে আঘাত হানতে শুরু করে। দিনের পর দিন তার শারীরিক অবস্থা খারাপ হতে থাকে।

২০০০ সালের ৪ জানুয়ারি উরুগুয়ের পুন্তা দেল এস্তে ছুটি কাটানোর সময় তাকে দ্রুত একটি স্থানীয় ক্লিনিকের জরুরি কক্ষে নেয়া হয়। একটি সংবাদ সম্মেলনে চিকিৎসকরা বিবৃতি দিয়ে জানান, যে তার হৃৎপিণ্ডের পেশিতে ক্ষত ধরা পড়েছে। পরবর্তীতে জানা যায় যে তার রক্তে কোকেন পাওয়া গেছে এবং তার পরিস্থিতি সম্পর্কে পুলিশের কাছে ব্যাখ্যা দিতে হয়েছে। এই ঘটনার পর তিনি মাদক পুনর্বাসন পরিকল্পনা অনুসরণের জন্য আর্জেন্টিনা ছেড়ে কিউবাতে চলে যান।

২০০৪ সালের ১৮ এপ্রিল, চিকিৎসকরা প্রতিবেদন প্রকাশ করেন যে অতিরিক্ত কোকেন সেবনের কারণে ম্যারাডোনা মায়োকার্ডিয়াল ইনফ্রাকশনের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন। বুয়েনস আইরেসের একটি হাসপাতালে তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। সেসময় তার অসংখ্য ভক্ত ক্লিনিকের চারপাশে ভিড় করে। ২৩ এপ্রিল তার শ্বাসযন্ত্র খুলে দেওয়া হয়, তবুও ২৯ এপ্রিল মুক্তি পাওয়ার আগ পর্যন্ত তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। তিনি কিউবায় ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করেন, তবে তার পরিবার এর বিরোধিতা করে, তার আইনি অবিভাবকত্ব পরীক্ষা করার জন্য একটি বিচার বিভাগীয় পিটিশন দায়ের করা হয়।

একটা সময় ম্যারাডোনার ওজন বৃদ্ধি পাওয়ার প্রবণতা তৈরি হয়। তার খেলোয়াড়ি ক্যারিয়ারের শেষ থেকে গ্যাস্ট্রিক বাইপাস সার্জারি করার আগে পর্যন্ত তিনি বৃদ্ধিমূলক স্থূলতায় ভুগছিলেন। ২০০৫ সালের ৬ মার্চ কলম্বিয়ায় তার অস্ত্রোপচার করা হয়। তার সার্জন বলেন যে, ম্যারাডোনাকে এক ধরনের তরল ডায়েট অনুসরণ করে চলতে হবে, তার স্বাভাবিক ওজন ফিরে পাওয়ার জন্য। তবে যখন ম্যারাডোনা জনসমক্ষে আসতে শুরু করেন, তখন তাকে আগের চেয়ে পাতলা গড়নে দেখা যায়।

২০০৭ সালের ২৯ মার্চ ম্যারাডোনাকে পুনরায় বুয়েনস আইরেসে একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাকে হেপাটাইটিস এবং অ্যালকোহলের অতিরিক্ত ব্যবহারের কারণে চিকিৎসা করা হয়। তাকে ১১ এপ্রিল হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়, কিন্তু এর দুই দিন পরই আবার ভর্তি হন। এর পরবর্তী কিছু দিনে তার স্বাস্থ্য সম্পর্কে কিছু গুজব ছড়িয়ে পড়ে, এমনকি একই মাসে তিনবার তার মৃত্যুর গুজব ছড়ায়।

পরবর্তীতে অ্যালকোহল সম্পর্কিত সমস্যার কারণে একটি মানসিক ক্লিনিকে স্থানান্তরের পর ম্যারাডোনাকে ৭ মে ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

২০০৭ সালের ৮ মে আর্জেন্টিনার টেলিভিশনের একটি অনুষ্ঠানে ম্যারাডোনা উপস্থিত হয়ে বলেন যে তিনি বিগত আড়াই বছর যাবৎ মাদক ব্যবহার ছেড়ে দিয়েছেন।

১৯৯১ সালে ইতালিতে ড্রাগ টেস্টে কোকেনের জন্য ধরা পড়ায় ১৫ মাসের জন্য ফুটবল থেকে নিষিদ্ধ হন তিনি। আর ১৯৯৪ বিশ্বকাপে ইফিড্রিন টেস্টে পজিটিভ ফলাফলের জন্য তাকে প্রতিযোগিতা থেকে বাদ দেওয়া হয়।

এদিকে ২০০৯ সালের মার্চে ইতালিয়ান কর্মকর্তাগণ ঘোষণা করেন যে ম্যারাডোনার ইতালীয় সরকারের কাছে করের ৩৭ মিলিয়ন ইউরো ঋণ রয়েছে। এর মধ্যে ২৩.৫ মিলিয়ন ইউরো তার মূল ঋণের ওপর জমা সুদ। প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় যে তিনি শুধুমাত্র ৪২,০০০ ইউরো শোধ করেছেন, দুইটি বিলাসবহুল ঘড়ি এবং একটি মাকড়ি সেটের জন্য।

ম্যারাডোনা বান্ধবী অলিভার মামলায় ২৩ মে ২০১৯ সালে গ্রেফতার হন। ম্যারাডোনা-অলিভার ছয় বছরের সম্পর্ক বিচ্ছেদের পর অর্থনৈতিক ক্ষতিপূরণ হিসেবে ৭৬ কোটি টাকার মামলা করেন অলিভা। সে মামলায় মেক্সিকো থেকে ফেরার পথে গ্রেফতার হন তিনি।

বরাবরই যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধীতা করা ম্যারাডোনা ২০০৫ সালে আর্জেন্টিনার মার দেল প্লাটায় সামিট অফ দ্য আমেরিকাস-এ আর্জেন্টিনায় তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের উপস্থিতির বিরোধিতা করেন। তিনি একটি টি-শার্ট পরেছিলেন, যাতে লেখা ছিল “STOP BUSH” এবং তিনি বুশকে “আবর্জনা” হিসেবেও উল্লেখ করেন।

২০০৭ সালের আগস্টে, ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ড হুগো শ্যাভেজের একটি সাপ্তাহিক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সবকিছুকেই ঘৃণা করি যা যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসে। আমি ঘৃণা করি আমার সর্বশক্তি দিয়ে।’ এছাড়া ২০০৭ সালের ডিসেম্বরে ম্যারাডোনা ইরানের জনগনকে সমর্থন জানানোর জন্য একটি স্বাক্ষরকৃত শার্ট উপস্থাপন করেন। 

নতুন প্যাকেজে অর্থনীতি আরও গত.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন প.....

এবার আদমশুমারিতে আলাদা পরিচয় .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

এবারের আদমশুমারিতে আলাদা পরিচয় পাচ্ছেন হিজড়ারা।  নারী বা পুরুষ নয়, এবার আদমশুমা.....

জিয়াউর রহমানের জন্মদিন উপলক্.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) প্রতিষ্ঠাতা শহিদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮.....

ইসলামে জঙ্গিবাদের স্থান নেই : .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ‘জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক চ্যা.....

বইমেলা হবে, তারিখ চূড়ান্ত করবে.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

করোনার (কোভিড-১৯) কারণে এবার অমর একুশে বইমেলার সরাসরি আয়োজন না হওয়ার কথা চলছিল। বলা .....

উপজেলা পর্যায়ে সিনেমা হল নির্.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, উপজেলা পর্যায়ে সিনেমা হল নির্মাণে এক হাজার কোটি .....

সরকারি চাকরির পরীক্ষায় প্রশ্.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও এর অধীনস্থ বিভিন্ন দফতরের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির নিয়োগে .....

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩০ জ.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

করোনা মহামারির কারণে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (কওমি ছাড়া) চলমান ছুটি আগামী ৩.....

একটানা ক্ষমতায় থাকার ফলে মানু.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষ আমাদের বার বার ভোট দিয়েছে। আমারদের ও.....

জনগণের আস্থা আছে বলেই উন্নয়ন.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস আছে বলেই দেশে উন্নয়নের ধ.....

৯ ‘জঙ্গির নব দিগন্তে প্রত্যাব.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যমে জঙ্গি মতাদর্শ ছড়ানো এক দম্পতিসহ নয় তরুণ-তরু.....

ভুলে ভরা বিনামূল্যের বই, বিতর্.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

আকতারুজ্জামান

বছরের প্রথম দিনেই শিক্ষার্থীদের মধ্যে নতুন বই বিতরণ শুরু করেছে .....