• ঢাকা
  • শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১ | ২ মাঘ, ১৪২৭
১৯৫৮ সালে ভবনটি উদ্বোধন করা হয়

কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বর : নতুন মাত্রায় যোগ হচ্ছে বিনোদনের সব মাধ্যম

কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বর : নতুন মাত্রায় যোগ হচ্ছে বিনোদনের সব মাধ্যম

সামরুজ্জামান (সামুন), কুষ্টিয়াঃ

ইট-পাথরের শহরে দিন দিন বিনোদন এমনকি হাঁটা চলার জায়গা সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ সব বয়সী মানুষের কাছে এখন এক চিলতে ফাঁকা জায়গার বড় অভাব। যে দু’একটি আছে তাও পরিবেশের কারনে অনেকে যেতে চান না। তাই বিনোদনের পাশাপাশি হাঁটাচলা এমনকি শিশুদের খেলাধুলার জন্য গড়ে তোলা হচ্ছে কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বরকে। চিরচেনা কালেক্টটরেট চত্বর এখন আমূল বদলে যাচ্ছে।

বলা যায় অনেকটা জীর্ণশীর্ন ও জঞ্জাল অবস্থায় ছিল কুষ্টিয়া কালেক্টটরেট চত্বরের সামনের অংশ। দুটি পুকুর আর সামনের মাঠকে কেন্দ্র করে গড়ে তোলা হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন একটি পার্ক। এখানে চারিপাশে হাটার জন্য পাকাসড়ক, অভ্যন্তরীন লিংক রোড, বাগান, শিশুদের খেলার রাইড, বসার জন্য গোলঘর আর পুকুরে নৌকা রাখা হয়েছে। সকাল ও বিকেল পর্যন্ত সব বয়সী মানুষের আনাগোনা বাড়ছে কালক্টটরেট চত্বরে। হাঁটতে আসেন প্রচুর নারী-পুরুষ। বিকেলে দল বেঁধে খেলতে আসে শিশুরা।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, কুষ্টিয়া কালেক্টটরেট ভবনটি তৈরি হয় পাকিস্থান আমলে। ১৯৫৮ সালে ভবনটি উদ্বোধন করা হয়। এরপর সামনের অংশে একটি বাগান ও পশ্চিমে পুকুর ছিল। চারিপাশে ছিল কিছু গাছ গাছালি। তবে বাগানটি পরিকল্পিতভাবে গড়ে না তোলায় কার্যালয়ের সামনে হাঁটা চলার তেমন কোন জায়গা ছিল না। গাড়ি পার্কিংসহ সব মিলিয়ে এলোমেলো অবস্থায় ছিল কার্যালয়ের সামনের অংশ।

গত এক বছর আগে সামনের অংশকে নতুন আঙ্গিকে গড়ে তোলার পরিকল্পনা করেন জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন। সে সময় তাকে এ বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতা করেন তৎকালিন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আজাদ জাহান। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে আগের বাগান ভেঙ্গে ফেলা হয়। এরপর একটি নকশা করা হয়। সেই নকশায় সামনের অংশে একটি মঞ্চ নির্মাণ করা হয়। সামনে রয়েছে বিশাল খোলা অংশ। সাংস্কৃতিকসহ সব ধরনের অনুষ্ঠানের জন্য এটি তৈরি করা হয়েছে। এখানে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীর অনুষ্ঠানও করা হয়েছে। এক সাথে প্রায় দুই থেকে তিন হাজার মানুষ বসতে পারবে। এক পাশে রাখা হয়েছে গাড়ি পার্কিং এর জায়গা। পুকুরের পাশ দিয়ে করা হয়েছে বাগান।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ঠিক সামনে দুই পুকুরের মাঝে তৈরি করা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য। পুকুরের চারিপাশ ব্লক দিয়ে বাঁধানো হয়েছে। তৈরি করা হয়েছে পাকা সড়ক। পুকুরের দুই ধারে বসার জন্য গোলঘর নির্মাণ করা হয়েছে। চারপাশে লাগানো হবে নানা জাতের বৃক্ষ। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার সজ্জিত করা হয়েছে। রাতের বেলা এর আসল রূপ ফুটে ওঠে। আলো আধারিতে অপূর্ব এক দৃশ্যের অবতারণা হয়। আলোর উৎসের জন্য চারিধারে বসানো হয়েছে সোলার প্যানেল। বিশেষ করে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারসহ সব স্থাপনায় আলোকসজ্জা করায় সবার কাছে রাতের পরিবেশ মনোমুগ্ধকর হয়ে ওঠে। তাইতো রাতেও ঘুরতে আসেন অনেকে। দর্শনার্থীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে গোলঘর। যারা আসবেন তারা এখানে বসে সময় কাটাতে পারবেন। পাশাপাশি শিশুদের বিনোদনের জন্য পুকুরে পা চালিত নৌকা রাখা হয়েছে। আর নাগরদোলাসহ বেশ কিছু রাইড উপভোগ করতে পারবেন বেড়াতে আশা শিশুরা।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বলেন,‘ অনেক পুরাতন কুষ্টিয়া কালেক্টটরেট চত্বরকে নতুন করে সাজানোর পরিকল্পনা করা হয়। সেই অংশ হিসেবে এক বছর আগে কাজ শুরু করা হয়। ডিজাইন অনুযায়ী কাজ চলছে। পুরো কাজ বাস্তবায়ন হতে আরো কিছু সময় লাগবে।

তিনি বলেন, এখন কালেক্টটরেট চত্বর বদলে গেছে। বিনোদন প্রিয় মানুষ এখানে আসছে। সকাল ও বিকেলে প্রচুর মানুষ এখানে হাটতে আসেন। ছোটরাও খেলতেও আসেন। সবার জন্য পার্ক নির্মাণ করা হচ্ছে। বদলে যাচ্ছে চিরচেনা সেই দৃশ্য। এখন সব বয়সের মানুষের বিনোদনের কেন্দ্র হয়ে উঠবে কালেক্টটরেট চত্বর। জানাগেছে, পুকুরের চারিপাশের খোলা যে জায়গা ফাঁকা রয়েছে সেখানে ঘাস ও গাছ লাগানো হবে। ফুলের গাছ ছাড়াও থাকবে নানা জাতের বৃক্ষ। তবে ফুল গাছ দিয়েই সজ্জিত করা হবে বাগান।

গণপুর্ত বিভাগ সূত্র জানায়, তারা সামনের অংশটি গাড়ি পার্কিংসহ যে কোন অনুষ্ঠানের জন্য প্রস্তুত করেছেন। এছাড়া বাউন্ডারি ওয়ালসহ দৃষ্টিনন্দন একটি প্রবেশ পথ তৈরি হবে। এ জন্য সব কাজ চলমান আছে।

এখানে নিয়মিত হাঁটতে আসেন আলী হায়দার লিপু। কথা হলে জানান, এক বছর আগেও এখানে হাঁটাচলা যেত না। সেই অবস্থা এখন পুরোপুরি বদলে গেছে। পরিস্কার-পরিচ্ছনতার পাশাপাশি বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছে কালেক্টটরেট চত্বর।’ ফাতেমা ইয়াসমিন নামের এক নারী তার শিশু সন্তান নিয়ে ঘূরতে এসেছিলেন কালেক্টটরেট চত্বরে। তিনি বলেন,‘ সুন্দরভাবে সাজানো হচ্ছে কালেক্টটরেট চত্বরকে। এখানে শিশুরা বিনোদনের সুযোগ পাবে। পরিবেশও ভাল। পুরো কাজ বাস্তবায়ন হলে বদলে যাবে এর চেহারা। নিরাপত্তা ব্যবস্থাও ভাল বলে জানান তিনি।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩০ জ.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

করোনা মহামারির কারণে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (কওমি ছাড়া) চলমান ছুটি আগামী ৩.....

একটানা ক্ষমতায় থাকার ফলে মানু.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষ আমাদের বার বার ভোট দিয়েছে। আমারদের ও.....

জনগণের আস্থা আছে বলেই উন্নয়ন.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস আছে বলেই দেশে উন্নয়নের ধ.....

৯ ‘জঙ্গির নব দিগন্তে প্রত্যাব.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যমে জঙ্গি মতাদর্শ ছড়ানো এক দম্পতিসহ নয় তরুণ-তরু.....

ভুলে ভরা বিনামূল্যের বই, বিতর্.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

আকতারুজ্জামান

বছরের প্রথম দিনেই শিক্ষার্থীদের মধ্যে নতুন বই বিতরণ শুরু করেছে .....

যেখানে কম দামে ভ্যাকসিন পাব, স.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, যেখানে কম দামে করোনার ভ্যাকসিন পাব, সেখান থ.....

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের নতুন চ.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

সরকারের অবসরপ্রাপ্ত সচিব এ এস এম আলী কবীরকে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান নি.....

৪১ ও ৪২তম বিসিএস পরীক্ষার তারি.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা এবং ৪২তম বিসিএসের (বিশেষ) এমসিকিউ পরীক্ষার তা.....

আরইবি চেয়ারম্যানের মেয়াদ আরো .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মঈন উদ্দিনের চুক্.....

করোনার ভ্যাকসিন আনার চেয়ে প্র.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল বলেছেন, করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আনার চেয়ে মানবদেহ.....

দেশে এখন মিথ্যার চাষাবাদ হচ্ছ.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, এ সরকারের আমলে সত্য থ.....

ভ্যাকসিন বিষয়ক অ্যাপ তৈরিতে এ.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

করোনা টিকাগ্রহীতাদের জন্য ডাটাবেজ তৈরিতে যে অ্যাপ তৈরি করা হচ্ছে তার জন্য কোনও টা.....