• ঢাকা
  • সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১ | ১৬ ফাল্গুন, ১৪২৭
ডাঃ সৌমিত্র ঘোষ

ভ্যাকসিন নেওয়ার সুফল কী কী?

ভ্যাকসিন নেওয়ার সুফল কী কী?

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

পরামর্শে পিজি হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডাঃ সৌমিত্র ঘোষ ও স্কুল অব ট্রপিক্যাল মেডিসিন-এর সহকারী অধ্যাপক ও সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ যোগীরাজ রায়।চিকিৎসাবিজ্ঞানের কৃপায় অবশেষে দেশব্যাপী টিকাকরণের মহাযজ্ঞ শুরু হয়ে গেল। বর্তমানে প্রথম পর্যায়ের টিকাকরণ চলছে। এখন টিকা পাচ্ছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। আর কয়েকটি ধাপ পেরলেই সাধারণ মানুষও টিকা পাবে। মিলবে যুদ্ধজয়ের আনন্দ। তবে টিকাকরণ শুরু হতে না হতেই টিকা নিয়ে জনমানসে নানা বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়েছে। উঠে আসছে নানান প্রশ্ন। খুঁজে নেওয়া যাক তারই উত্তর—ভ্যাকসিন নেওয়ার সুফল কী কী?অতিমারীর সময় ভ্যাকসিন নেওয়ার দু’টি সুফল— ১. ব্যক্তিগত সুরক্ষা: কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনটির ক্ষেত্রে সংস্থার পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, দু’টি টিকা নেওয়ার পর ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে প্রতিরোধ গড়ে উঠবে কমবেশি ৭০ শতাংশ।২. সামাজিক সুরক্ষা বা হার্ড ইমিউনিটি: হার্ড ইমিউনিটি গড়ে তোলার জন্য দেশের ৬৭ থেকে ৭০ শতাংশ মানুষের মধ্যে প্রতিরোধ গড়ে ওঠা প্রয়োজন। তাই দেশের একশো শতাংশ মানুষ যদি ভ্যাকসিন নেন এবং ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা যদি ৭০-৮০ শতাংশও হয়, সেক্ষেত্রে সামাজিক সুরক্ষা বলয় তৈরি হয়ে যাবে।কোভিশিল্ড ও কোভ্যাকসিনআপাতত দেশে দু’টি ভ্যাকসিন ছাড়পত্র পেয়েছে— ১. অক্সফোর্ড এবং অ্যাস্ত্রাজেনেকার কোভিশিল্ড। ২. আইসিএমআর (ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ)-এর গবেষণার মাধ্যমে তৈরি হওয়া সম্পূর্ণ দেশীয় টিকা কোভ্যাকসিন।প্রথমে কোভিশিল্ড-এর প্রসঙ্গে বলি। মূলত ভাইরাল ভেক্টর ক্যারিয়ার প্রোটিন ভ্যাকসিন হল কোভিশিল্ড। কোভিশিল্ডে ব্যবহার করা হচ্ছে শিম্পাঞ্জির লাইভ অ্যাডিনো ভাইরাস। এই অ্যাডিনো ভাইরাস মানবদেহে বংশবৃদ্ধি করতে পারে না। এই ভাইরাসের জেনেটিক উপাদান বাদ দিয়ে শুধু তার খোলটি ব্যবহার করা হচ্ছে। ভাইরাসের খোলকের মধ্যে রাখা হচ্ছে করোনা ভাইরাসের ‘স্পাইক প্রোটিন’-এর অংশ। এই ভাইরাস মানবদেহের কোষে শুধু স্পাইক প্রোটিন পৌঁছে দেওয়ার কাজটিই করবে। কোষের মধ্যে শুধু স্পাইক প্রোটিনের সংখ্যা বাড়বে। অথচ কোনও ক্ষতি হবে না। আমাদের মনে রাখতে হবে, এই স্পাইক প্রোটিনের সাহায্যেই মানবদেহের কোষে আটকে যায় ভাইরাস। ফলে ভ্যাকসিনের মাধ্যমে আগে থেকে এই প্রোটিনকে দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা চিনে রাখলে, করোনা ভাইরাসকেই আর কোষে আটকাতে দেবে না। কোভিশিল্ড নিয়ে বিস্তারিত গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে বিভিন্ন জার্নালে। আর দেশীয় কোভ্যাকসিনে ব্যবহার করা হচ্ছে নিষ্ক্রিয় করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাস শরীরে বংশবৃদ্ধি করতে পারবে না। অথচ শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা জীবাণুটিকে চিনে রাখবে! তবে কোভ্যাকসিন সম্পর্কে বেশি তথ্য হাতে নেই। তবে যাঁদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম ও যাঁদের অন্য একাধিক ওষুধ খেতে হয়, তাঁদের কোভ্যাকসিন নিতে নিধেষ করছে ভারত বায়োটেক। সম্প্রতি এই নিয়ে বিস্তারিত একটি তথ্যপত্র প্রকাশ করেছে সংস্থা।ক’টি ডোজ নিতে হবে?কোভিশিল্ড দু’টি ডোজে নিতে হয়। একবার নেওয়ার চার সপ্তাহ পরে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে। ইঞ্জেকশনের সাহায্যে হাতের মাংসপেশিতে দিতে হয়। কোভ্যাকসিনও নিতে হবে দু’টি ডোজে। প্রথম ডোজের থেকে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার মধ্যে ২৮ দিনের পার্থক্য থাকবে। হাতের উপরের দিকের ডেল্টয়েড মাংসপেশিতে ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। কেউ কেউ দাবি করছেন, কোভিড থেকে সেরে ওঠা রোগীর শরীরে ইতিমধ্যেই অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে আছে। ভ্যাকসিন নেওয়ার ফলে সেই অ্যান্টিবডি নাকি নষ্ট হয়ে যাবে। এই দাবি কতটা সত্যি?জীবাণুর কারণে অসুখ হলেই আমাদের শরীরে সেই জীবাণুর বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়। ভিন্ন ভিন্ন জীবাণুর বিরুদ্ধে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডির স্থায়িত্বকালেও প্রভেদ দেখা যায়। একটা উদাহরণ দিলে বিষয়টি স্পষ্ট হবে। কোনও ব্যক্তির স্মল পক্স হলে, তাঁর শরীরে যে অ্যান্টিবডি তৈরি হয় তা প্রায় সারাজীবনই থাকে। অন্যদিকে ইনফ্লুয়েঞ্জা কিন্তু আমাদের বছর বছর হয়। ইনফ্লুয়েঞ্জার বিরুদ্ধে শরীরে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডির স্থায়িত্ব কাল ছয় থেকে আট মাস। এই কারণেই বছর বছর ইনফ্লুয়েঞ্জার ভ্যাকসিন নিতে হয়। দেখা গিয়েছে, করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধেও আমাদের শরীরে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডি দীর্ঘস্থায়ী হয় না। আমরা একই ব্যক্তিকে একাধিকবার করোনায় আক্রান্ত হতে দেখেছি। সুতরাং কোভিড থেকে সেরে ওঠার পরেও ভ্যাকসিনের ডবল ডোজ নিলে কোভিডজয়ীর রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালীই হবে। ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা কতদিন?গবেষণালব্ধ ফলাফল থেকে দাবি করা হচ্ছে, কোভিশিল্ডের কার্যকারিতা প্রায় একবছর বজায় থাকবে। সুতরাং যাঁরা ভ্যাকসিন নিচ্ছেন তাঁদের আগামী একবছর পর্যবেক্ষণ করা হবে। তারপর দেখা হবে বুস্টার ডোজ কবে নেওয়ার দরকার পড়বে। এমনকী এও হতে পারে যে বুস্টার ডোজের আর দরকারই আর পড়ল না!মিউটেশন হলে তখন? করোনা ভাইরাসের চরিত্র বদল নিয়ে চারিদিকে আলোড়ন চলছে। তবে এই মিউটেশন ভাইরাসের তেমন বড় বদল আনেনি। তাই এই টিকা দু’টি চরিত্র পরিবর্তন করা ভাইরাসের বিরুদ্ধেও কাজ করবে বলে মনে করা হচ্ছে। টিকা নেওয়ার পরেভ্যাকসিন নেওয়ার পরেই হাসপাতাল থেকে চলে যাবেন না। ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এই সময়ের মধ্যে কোনওরকম শারীরিক অসুস্থতা দেখা দিলে চিকিৎসককে জানান। সাধারণত ৩০ মিনিট পেরিয়ে গেলে আর কোনও সমস্যা হতে দেখা যায়নি।কারা টিকা নিতে পারেন?বিশেষ কিছু ক্ষেত্র ছাড়া সকলেই নিতে পারেন। কখন ভ্যাকসিন নেওয়া যাবে না? অ্যালার্জির পূর্ব ইতিহাসে। জ্বর থাকলে। রক্তপাতজনিত সমস্যা বা রক্ত তরল করার ওষুধ খেলে।  ইমিউনিটি কম থাকলে বা ইমিউনিটির উপর প্রভাব ফেলে এমন ওষুধ খেলে। সন্তানসম্ভবা অবস্থায়। মাতৃদুগ্ধ পান করালে। করোনার অন্য ভ্যাকসিন নিলে। কোনও জটিল অসুখ থাকলে চিকিৎসকের সঙ্গে আগেভাগে পরামর্শ করে নিন। প্লাজমা থেরাপির অধীনে রয়েছেন এমন ব্যক্তি। মারাত্মকভাবে অসুস্থ রোগী। টিকা নেওয়ার পরও কি মাস্ক? আগেই বলেছি, ভ্যাকসিন দেওয়া মানেই ১০০ শতাংশ সুরক্ষিত— এমন ভাবার কারণ নেই। তাই ভ্যাকসিন নেওয়ার পরও করোনা বিধি যেমনটা মানছিলেন, তেমনই মেনে চলুন। শারীরিক দূরত্ব বজায় রখুন, মাস্ক পরুন, সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিন বা স্যানিটাইজ করুন। অবশ্যই মনে রাখুন১. ভ্যাকসিন থেকে করোনা হয় না২. করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার পরও ভ্যাকসিন নিতে হবে। ৩. ১৮ বছরের নীচে এই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে তথ্য সামনে আসেনি। তাই বাচ্চাদের আপাতত এই টিকা দেওয়া হবে না। ৪. ভ্যাকসিন বাধ্যতামূলক নয়। চাইলে নাও নিতে পারেন। জোর করে দেবে, এমন ভাবার কারণ নেই।

লিখেছেন সুপ্রিয় নায়েক ও সায়ন নস্করছবি: ভাস্কর মুখোপাধ্যায়

আঙুলের ছাপে পরিচয় নিশ্চিতের প.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক;

অপরাধী, সন্দেহভাজন কিংবা বেওয়ারিশ মরদেহের আঙুলের ছাপ স্ক্যান করে পরিচয় নিশ্চিত ক.....

আগামীতে আর কোন ইউপি নির্বাচনে .....

লাখোকন্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

আগামীকে আর কোন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে না বলে জানিয়েছেন.....

২ মাস ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

জাটকা সংরক্ষণে আগামীকাল ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত টানা দুই মাস দেশের ছয়টি জেল.....

বাঁশ হাতে পুলিশের দিকে তেড়ে যা.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

আজ রবিবার রাজধানীতে ছাত্রদলের সমাবেশ ঘিরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে  বিএন.....

বিত্তশালীদেরও শিক্ষাসহায়তায় .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

শিক্ষার উন্নয়ন ও প্রসারে সরকারের নানা উদ্যোগের চিত্র তুলে ধরে এ ক্ষেত্রে বিত্তবা.....

ড. কামালকে বাদ দিয়েই গণফোরামের.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

দলের প্রতিষ্ঠাতা ড. কামাল হোসেনকে ছাড়াই জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠনের ঘোষণা দিয়েছে গ.....

প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেয়.....

লাখোকন্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের জন্য জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপ.....

বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার পূর্ণ যোগ্যতা অর্জন করেছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত.....

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলে.....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন .....

শেখ হাসিনার আমলে সংবাদমাধ্যম.....

লাখোকন্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলে সংবাদমাধ্যমকে অবাধ স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে বলে দাব.....

নির্বাচনি পরিবেশ নষ্টের পিছন.....

লাখোকন্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

নির্বাচন কমিশনার অবসরপ্রাপ্ত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেছেন, ন.....

টিকা নিলেন রওশন এরশাদ .....

লাখোকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:

করোনা ভাইরাসের টিকা নিয়েছেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। আজ বৃহস্পতি.....