• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯ | ৭ চৈত্র, ১৪২৫

কুড়িগ্রাম-১ আসনে ত্রি- মুখী লড়াই নৌকা-লাঙ্গল-ধানের শীষ

কুড়িগ্রাম-১ আসনে ত্রি- মুখী লড়াই নৌকা-লাঙ্গল-ধানের শীষ

কুড়িগ্রাম জেলা সংবাদদাতা ॥ কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ২৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত মহান জাতীয় সংসদের ২৫ কুড়িগ্রাম-১ আসন। মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৩৩ হাজার ৫শ’ জন। মোট কেন্দ্র ২২৬টি। ধরলা নদী দ্বারা বিচ্ছিন্ন এই উপজেলা দুটি নানা দিক থেকে বঞ্চিত। বিএনপি ও জাতীয় পার্টি বারবার দেশের ক্ষমতায় থাকলেও এখানে দৃশ্যত কোন উন্নয়ন কাজ করেনি। বর্তমান জাতীয় পার্টির এমপি একেএম মোস্তাফিজুর রহমান এই আসন থেকে পরপর ৪ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেও পিছিয়ে পড়া এই এলাকার মানুষের জন্য কার্যত কিছু করতে পারেন নি তিনি। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে বড় অভিযোগ ভোটে জিতেই তিনি চলে যান ঢাকায়। তার কিছু লোকজন ছাড়া এলাকার সাধারণ মানুষের তার সাথে যোগাযোগ করার কোন সুযোগ পায় না। এনিয়ে এলাকার মানুষ নাখোশ। লাঙ্গলের প্রতি এলাকার সাধারণ মানুষের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে বারবার তিনি নির্বাচনী বৈতরনী পার করেছেন ।

কুড়িগ্রাম-১ আসনে জমে উঠেছে ভোটের লড়াই। প্রধান তিনটি দল নিজস্ব প্রার্থী দেয়ায় বিপাকে পরেছে সাধারণ ভোটাররা। এই আসনে জাতীয় পার্টি থেকে বর্তমান এমপি একেএম মোস্তাফিজুর রহমান, আওয়ামীলীগ থেকে আছলাম হোসেন সওদাগর এবং বিএনপি থেকে সাইফুর রহমান রানাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এবার আওয়ামীলীগ থেকে আছলাম হোসেন সওদাগরকে নৌকার প্রার্থী করায় সাধারণ মানুষের মধ্যে অনেক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কারণ এখানকার যেটুকু উন্নয়ন হয়েছে তা শেখ হাসিনার হাত ধরেই হয়েছে। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেই তিনি কুড়িগ্রামে ধরলা নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে এলাকার আপামর মানুষের সাথে সেতুবন্ধন রচনা করেন। এরপর পিছিয়ে পরা সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে ভুরুঙ্গামারীর সোনাহাটে স্থলবন্দর চালু করেন। রংপুর ও ঢাকার সাথে দ্রুত যোগাযোগের জন্য তিনি ফুলবাড়ীতে ধরলা নদীর উপর শেখ হাসিনা দ্বিতীয় ধরলা সেতু নির্মাণ করে বিচ্ছিন্ন তিন উপজেলার মানুষদের যোগাযোগ ব্যবস্থায় ব্যাপক ভুমিকা রাখেন।

এছাড়াও সোনাহাট ব্রীজটি নির্মাণের জন্য একনেকে বাজেট পাশ করেন। মঙ্গাপীড়িত এলাকার বেকার-যুবক-যুবতীদের জন্য চালু করেন ন্যাশনাল সার্ভিস। বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চলের হত- দরিদ্র মানুষ ও নদীভাঙ্গা পরিবারগুলোর কথা চিন্তা করে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির পাশাপাশি ভিজিডি, ভিজিএফ, জায়গা আছে ঘর নেই, একটি বাড়ি একটি খামার, টাকার বিনিময়ে কাজ, গুচ্ছগ্রামসহ নানান কর্মসূচি গ্রহন করেন। এছাড়াও কৃষিঋণ, সার-বীজসহ কৃষকদের উন্নয়নে দেয়া হয় বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা। দিনমজুরদের শ্রমহার নির্ধারণ করেন তিনশ টাকা। শিক্ষিত এবং স্বল্প শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীদের জন্য যুব উন্নয়ন ও টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশে এবং দেশের বাইরে কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরী করে দেন। ফলে পিছিয়ে পরা এই এলাকার সাধারণ মানুষের দু:খ- দুর্দশার পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে বর্তমান সরকার। কিন্তু এই এলাকার সাধারণ মানুষের জন্য বড় দুর্ভাগ্য হল তারা বারবার লাঙ্গলে ভোট দিলেও তাদের ভাগ্য উন্নয়নের কোন কাজ করেনি বর্তমান এমপি একেএম মোস্তাফিজুর রহমান।

কুড়িগ্রাম-১ আসনেও কোনো স্বতন্ত্র প্রার্থী না থাকায় শুধু দলীয় প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক দেয়া হয়েছে। এখানে দলীয় প্রতীক পেয়েছেন, আছলাম হোসেন সওদাগর আওয়ামী লীগের নৌকা, একেএম মোস্তাফিজুর রহমান জাতীয় পার্টির লাঙ্গল, সাইফুর রহমান রানা বিএনপির  ধানের শীষ, ইসলামী আন্দোলনের আব্দুর রহমান প্রধান হাতপাখা, আব্দুল হাই জাকের পার্টির গোলাপ ফুল, জাহিদুল ইসলাম ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) আম, রশীদ আহমেদ জাতীয় পার্টির (জেপি) বাইসাইকেল ও তরিকত ফেডারেশনের কাজী লতিফুল কবির রাসেল ফুলের মালা।  নৌকার জয় পেতে কুড়িগ্রাম-১ আসনের বিভিন্নস্থানে প্রচারণা চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আছলাম হোসেন সওদাগর। নাগেশ্বরী উপজেলার ১টি পৌরসভাসহ ১৪টি ইউপি ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ১০টি ইউপির বিভিন্নস্থানে ভোটারদের কাছে গিয়ে তাদের কাছে ভোট চাচ্ছেন। তার প্রচারণায় সঙ্গে আছেন- ভুরুঙ্গামারী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শাহজাহান সিরাজ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুন্নবী চৌধুরী খোকন, কুড়িগ্রাম জেলা কৃষকলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমান বীরবল, নাগেশ্বরী উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী নাজমুল হুদা লাল, সাবেক অধ্যক্ষ আব্দুল জলিলসহ আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। নাগেশ্বরী উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী নাজমুল হুদা লাল বলেন, নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে অবিরাম প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। ভোটাররা আমাদের প্রার্থী আছলাম হোসেন সওদাগরকে ভোট দেয়ার আশ্বাস দিচ্ছেন। এ আসনে নৌকার জয় নিশ্চিত। অপরদিকে বিএনপির প্রার্থী সাইফুর রহমান রানা রয়েছেন বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে।

২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুখোমুখি লড়াইয়ে তিনি জাতীয় পার্টির প্রার্থী একেএম মোস্তাফিজুর রহমান এমপির কাছে পরাজিত হন। মোস্তাফিজুর রহমান পান ২ লাখ ৯ হাজার ৮৯৯ ভোট। অপরদিকে সাইফুর রহমান রানা পান ৯২ হাজার ৫৮৩ ভোট। ২০১৪ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হাই মাস্টারকেও পরাজিত করেন মোস্তাফিজুর রহমান সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এবার মহাজোট থেকে একক প্রার্থী না দেওয়ায় সুবিধা পাবেন বলে আশা করছেন সাইফুর রহমান রানা। এই আসনে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী পরস্পরের বিরুদ্ধে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ন হচ্ছে। ফলে ভোট ভাগাভাগি হলে ধানের শীষ সুবিধা পাবে বলে তিনি আশা করছেন। তবে সাধারণ মানুষ চিন্তা করছেন যে দল এলাকার উন্নয়নে কাজ করবে তাদেরকে তারা ভোট দিবেন। সেদিক থেকে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন নৌকা প্রার্থী আছলাম হোসেন সওদাগর। কারণ দীর্ঘদিন ধরে তিনি সাধারণ মানুষের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছেন। তাদের পাশে পাশে থাকার চেষ্টা করছেন। সেদিক থেকে মোস্তাফিজুর রহমান এমপি ঢাকায় বেশিরভাগ সময় অবস্থান করায় এলাকার মানুষ তার সাথে দেখা করার সুযোগ কম পান। এছাড়াও ৯৬ সাল থেকে একটানা সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেও কার্যত এলাকার মানুষের সাথে তার কোন যোগাযোগ নেই। সচেতন মানুষ তাকিয়ে আছে ৩০ ডিসেম্বরের দিকে। সেদিন কার পক্ষে রায় দেয় কুড়িগ্রাম-১ আসনের ভোটাররা ।

কুড়িগ্রাম-১ আসনে প্রধান তিন দল ছাড়াও সাবেক ভুরুঙ্গামারী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জাকের পার্টি প্রার্থী আব্দুল হাই মাস্টারও কিছু ভোট টানতে পারবেন বলে জানা গেছে। এছাড়াও এই আসনে লড়াই করছেন ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখা প্রতীক নিয়ে আব্দুর রহমান প্রধান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি) আম প্রতীক নিয়ে জাহিদুল ইসলাম, জাতীয় পার্টি (জেপি) বাইসাইকেল প্রতীক নিয়ে রশীদ আহমেদ, তরিকত ফেডারেশনের ফুলের মালা প্রতীক নিয়ে কাজী লতিফুল কবির রাছেল। ত্রকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীরা নিজে, দলের কর্মী এবং সমর্থক নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত তখন ব্যতিক্রমী শুধু একজন। প্রচারণা জন্য নিজেই মাইকিং করছেন, যাচ্ছেন ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে। কুড়িগ্রাম-১ আসনের জাকের পার্টির প্রার্থী, সাবেক ভূরুঙ্গামারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল হাই মাষ্টার। সরেজমিনে দেখা যায়, ঝাপ খোলা একটি ইজি বাইকের সামনে পিছনে দুটি মাইক বেঁধে চষে বেড়াচ্ছেন নির্বাচনী এলাকা। বাজারে বাজারে থেমে চালাচ্ছেন কুশল বিনিময় আর জনসংযোগ। মাইকে নিজের পরিচয় দিয়ে ভোট চাচ্ছেন। বাজারে বাজারে থেমে মাইকে ঘোষণা দেন, “আমি হাই মাষ্টার,  ভাই বোনদের বলে যাই গোলাপ ফুল মার্কায় ভোট চাই। আমাকে ভোট দিয়ে এলাকার সমস্যা সমাধানে সংসদে কথা বলার সুযোগ দিন”। তার এ প্রচারনা ভোটের মাঠে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। সাধারণ ভোটাররাও বেশ আগ্রহের সাথে শুনছেন তার মাইকিং। এই বিষয়ে আব্দুল হাই মাষ্টার জানান, তার কোন কর্মী বাহিনী নেই, নিজেই প্রার্থী, নিজেই কর্মী এবং প্রচারক। তিনি সারা জীবন জনগণের কাজ করেছেন, নাগরিক সমস্যা, পরিবেশ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। আব্দুল হাই মাষ্টার ২০০৮ সালে ভূরুঙ্গামারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এর আগে তিনি একই উপজেলার বঙ্গসোনাহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হন। উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালে পরিবেশ রক্ষায় ভূরুঙ্গামারী উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকায় ময়লার ভাগাড়ে নেমে ময়লা পরিষ্কার করতেন। বিষয়টি জনপ্রিয় ম্যাগাজিন ইত্যাদিতে উঠে আসে। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মহাজোট প্রার্থী জাতীয় পার্টির একেএম মোস্তাফিজুর রহমানের নিকট পরাজিত হন।  আব্দুল হাই মাষ্টারের হলফনামানুসারে জানা যায়, তিনি ভুরুঙ্গামারী উপজেলা সদর ইউনিয়নের দেওয়ানের খামার গ্রামের মৃত: এন্তাজ আলীর পুত্র। বিএ পাস করেছেন। সম্পত্তি বলতে বাড়িভিটাসহ ২৮ শতক জমি, একটি টিভি, ওয়ার্ডরোব, ৫ ভরি স্বর্ণ এবং নগদ ৫ লাখ ২০ হাজার টাকা রয়েছে। তবে তার কোন ধরনের ঋণ বা মামলা নেই। অপরদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিনের বন্দী জীবন থেকে বেরিয়ে আসা বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীর মাঝে দেখা দিয়েছে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা। বাংলাদেশের মূল ভূ- খন্ডে যুক্ত হওয়ার পর প্রথমবারের মতো জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে যাচ্ছেন কুড়িগ্রামের বিলুপ্ত ছিটমহলের অধিবাসীরা। নাগরিকত্ব পাওয়ার পর স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করলেও এবারই প্রথম তারা সংসদ নির্বাচনে ভোট দেয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। দেশ পরিচালনার প্রতিনিধি নির্বাচনে নাগরিক অধিকার প্রয়োগের এমন সুযোগে নতুন এ নাগরিকরা ভোট উৎসবে মেতে উঠেছেন। বর্তমান সরকার তাদের দীর্ঘদিনের বন্দীজীবন থেকে ফিরিয়ে এনে দেশের নাগরিকত্ব দিয়েছেন। নাগরিকত্ব পাওয়ার পর এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে ভোটারদের মাঝে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। চায়ের কাপে চুমুকের ফাকে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। আবার কেউ বা আলাপ- আলোচনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। বিলুপ্ত ছিটমহলের বাসিন্দা মকবুল হোসেন (৮৫) বলেন, ‘ভোট কিভাবে দেয় তা আমরা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে জেনেছি। এবার বুড়ো বয়সে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দিবার পামো। খুব ভাল লাগছে’। ২৫ কুড়িগ্রাম-১ আসনের সাধারন ভোটার ও সচেতন সুধি সমাজের সাথে আলোচনার মাধ্যমে এটি নিশ্চিত আগামী ৩০ ডিসেম্বর সংসদ নির্বাচনে এই আসনে আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থীদের মধ্যে ত্রি-মুখী নৌকা-লাঙ্গল-ধানের শীষ প্রতীকের লড়াই হবে।

দানবীর আরপি সাহাকে অনুসরণ করত.....

  সুমন খান.টাঙ্গাইল প্রিতিনিধ :  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা’র দৃষ্টান্ত অনুসরণ .....

সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকরা অাসছেন.....

     

লাখোকণ্ঠ প্রতিবেদক : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী .....

প্রবাসী প্রকৌশলীদের নিজ গ্রা.....

বাংলাদেশের প্রবাসী প্রকৌশলীদের স্বাগত জানিয়ে দেশের স্বার্থে নিজ নিজ গ্রামে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন প্.....

নিমতলীর ঘটনায় সুপারিশ বাস্তব.....

নিমতলীর ঘটনায় তদন্ত কমিটির দেওয়া ১৭ দফা সুপারিশ বাস্তবায়নে বিবাদীদের ব্যর্থতাকে কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে ন.....

মহান একুশে ফেব্রুয়ারি আজ .....

‘আমার ভায়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি/ আমি কি ভুলিতে পারি’— না, বাঙালি জাতি ভোলেনি পূর্বপুরুষের মহা.....

পিতার লাশের অপেক্ষায় দুই যমজ .....

এইচ এম কাওসার আহমেদ ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএর ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। কাজ করতেন চুড়িহাট্টায় এক ফা.....

প্রতি বছর বাড়ছে আট লাখ বেকার: স.....

গত ১০ বছরে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অনেক উন্নয়ন হলেও কর্মসংস্থান প্রবৃদ্ধি মূল চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে প্র.....

শুধু খামখেয়ালিতে ভাড়া করা বিম.....

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তাদের খামখেয়ালিপনায় ইজিপ্ট এয়ার থেকে লিজ নেয়া নষ্ট দুটি উড়োজাহাজের পে.....

পুলিশের হাতে নিরীহ মানুষ যেন হ.....

পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পুলিশের হাতে যেন কোনো নিরীহ মানুষ হয়রানি শ.....

বাংলাদেশ নিয়ে মিথ্যা সংবাদ, মি.....

সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে মিয়ানমারের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশ করায় বাংলাদেশে .....

বাংলাদেশ দুর্নীতিতে বিশ্বে ১.....

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই)-এর দুর্নীতির ধারণা সূচক অনুযায়ী বাংলাদেশে দুর্নীতি বেড়েছে। শীর্ষ .....

বিশ্বের শীর্ষ ১০০ চিন্তাবিদদ.....

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বিশ্বের শীর্ষ ১০০ চিন্তাবিদের তালিকায় স্থান পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ‘প.....