Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি অর্থনীতি
  6. খেলাধূলা
  7. চাকরি-বাকরি
  8. জাতীয়
  9. জীবনের গল্প
  10. ধর্ম
  11. নির্বাচনী হাওয়া
  12. ফিচার
  13. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  14. বিনোদন
  15. রাজধানী
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কবিতায়‘বিন্দু বিসর্গ পদক ২০২৩’ পেলেন  কবি আমিনুল ইসলাম

বার্তা কক্ষ
মার্চ ১২, ২০২৩ ১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শিল্প ও সাহিত্য: কবিতায়‘বিন্দু বিসর্গ পদক ২০২৩’ পেলেন  কবি আমিনুল ইসলাম। কবির ফেসবুকে পাওয়া অনুভূতি হুবহু আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। তিনি লিখেন-

“আরও একবার ভালো লাগা অনুভূতি ; কবিতার জন্য ” বিন্দু বিসর্গ পদক ২০২৩” পেলাম। স্থান : গাইবান্ধা শিল্পকলা একাডেমি।
কথাসাহিত্যে এই পদক পেয়েছেন এসময়ের গুণী ছোটগল্প রচয়িতা ও ঔপন্যাসিক ম্যারিনা নাসরীন: প্রবন্ধ সাহিত্যে হামিদ রায়হান, শিশুসাহিত্যে জ্যোতির্ময় সেন, ভ্রমণ কাহিনিতে শিউলী সিরাজ।
তাছাড়া “:সামগ্রিক অবদান ” বিবেচনায় এই পদক দেওয়া হয়েছে কবি নাসির আহমেদ, ফারুক মাহমুদ এবং ফরিদ আহমদ দুলালকে।
ফরিদ আহমদ দুলাল ছাড়া অবশিষ্ট সকলেই উপস্থিত থেকে এই পদক গ্রহণ করেন। পদকপ্রাপ্তদের ফুলের তোড়া, উত্তরীয়, ক্রেস্ট এবং পুরস্কার মূল্য হিসেবে নগদ অর্থ প্রদান করা হয়। নগদ অর্থের পরিমাণ আরেকটু বেশি হলে “৷ বিন্দু বিসর্গ পদক” এর কদর ও ওজন আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আমার মনে হয়।
বর্ষীয়ান কবি কবি-কথাসাহিত্যিক সম্পাদক সাবেদ আল সা’দ সম্পাদিত ” বিন্দু বিসর্গ ” লিটল ম্যাগাজিনের ২৩ বছর পূর্তিতে দিনভর আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ এবং ভারতের শতাধিক কবি অংশগ্রহণ করেন। আলোচনা, কবিতা পাঠ, সংগীত পরিবেশন ইত্যাদিতে সমৃদ্ধ ছিল সারাদিনের আয়োজন। গাইবান্ধার সাংস্কৃতিক আঙিনার বটগাছ অধ্যাপক মাজহারউল মান্নান দিনভর কর্মসূচির শুভ উদবোধন করেন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রায় সারাদিন অংশগ্রহণ করেন গাইবান্ধার সুনামধারী সংস্কৃতিবান্ধব ও জনপ্রিয় জেলা প্রশাসক জনাব মোঃ অলিউর রহমান।
প্রখ্যাত কবি নাসির আহমেদ, প্রখ্যাত কবি ফারুক মাহমুদ, অধ্যাপক মাজহারউল মান্নান, কবি শোয়েব শাহরিয়ার, কবি আসাদুল্লাহ, কবি শিবলী মুকতাদির, কবি খৈয়াম কাদের এবং ভারতের কয়েকজন বিশিষ্ট কবি ও সংগীতশিল্পী সমস্ত আয়োজনে অংশগ্রহণ করায় অনুষ্ঠানের মান এবং উচ্ছলতা দুই-ই বৃদ্ধি পেয়েছিল অনেক বেশি।
অংশগ্রহণকারীদের যাতায়াত, আবাসন এবং খাওয়া দাওয়া সবকিছুর ব্যবস্থা করেছিলেন আয়োজকগণ এবং তারাই সমস্ত ব্যয় বহন করেছেন। তবে বেশি ভালো লেগেছে কবি সাবেদ আল সা’দ এবং তার টিম এবং জেলা প্রশাসকের আন্তরিকতা।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০০১ সালে আমাকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পদ থেকে প্রত্যাহার করে গাইবান্ধা পৌরসভার ” প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ” পদায়ন করা হয় যা ছিল প্রচলিত কথায় Dumping posting বা শাস্তিমূলক বদলী। কাজকর্ম তেমন ছিলো না; গরিব পৌরসভার নিজস্ব ফান্ড থেকে আমাকে বেতন দিয়ে হিমসিম খেতে হতো পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে। ” নেই কাজ তো খই ভাজ ” এই সূত্রকে মান্য করে আমি সাহিত্যচর্চায় পুরো মনোনিবেশ করি। তখন বগুড়া লেখক চক্রের ইসলাম রফিক চাকরি করতেন গাইবান্ধায়। তার সঙ্গ পাই। আর গাইবান্ধার কবিছড়াকার আবুজাফর সাবু, কবিসম্পাদক সরোজ দেব, কবি অমিতাভ দাশ হিমুন, কবি নাট্যকার পিটু রশিদ, সাহিত্যিক সাংবাদিক গোবিন্দলাল দাস, কবি অদ্বিত্ব শাপলা, কবি মিজান মামুন, কবি শামীম—–, কবি দেবাশীষ দাশ দেবু, কবি সুলতান উদ্দিন আহমেদ, কবি কিংশুক ভট্টাচার্য এবং আরো অনেকের সান্নিধ্য লাভ করি। রাজশাহীর কবিসাহিত্যিকদের সাথেও সেই সুযোগে সখ্যতা গড়ে ওঠে। আমার প্রথম কবিতার বই ” তন্ত্র থেকে দূরে ” প্রকাশিত হত গাইবান্ধায় থাকাকালে এবং সেই বইয়ের অধিকাংশ কবিতা গাইবান্ধায় বসে রচনা করেছিলাম আমি। আমার প্রথম কবিতার বইয়ের প্রথম রিভিউ লেখেন কবি সাংবাদিক আবুজাফর সাবু ভাই। কবি সাবেদ আল সা’দের ” বিন্দু বিসর্গ ” পত্রিকায় লিখতাম কিন্তু তিনি ঢাকায় থাকতেন বলে তার সাথে মুখোমুখি আলাপের সুযোগ হতো না।
আজ ২১ বছর পর গাইবান্ধা আমাকে ” বিন্দু বিসর্গ পদক ২০২৩” দিয়ে সম্মানিত করলো। গাইবান্ধার কাছে আমার কবিজীবন নতুন করে ঋণী হলো আবারও।

তোমার জন্য অনিঃশেষ ভালোবাসা গাইবান্ধা।”



এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।