Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি অর্থনীতি
  6. খেলাধূলা
  7. চাকরি-বাকরি
  8. জাতীয়
  9. জীবনের গল্প
  10. ধর্ম
  11. নির্বাচনী হাওয়া
  12. ফিচার
  13. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  14. বিনোদন
  15. রাজধানী
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লৌহজংয়ে জোর করে বৃদ্ধার জমি ফের দখলের চেষ্টা 

নিউজ রুম
ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৪ ৯:২৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে ফের বৃদ্ধার জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে ফের মানিক রয়েল তার দলীয় লোকজন নিয়ে ওই জমি দখলের চেষ্টা চালায় বলে ভুক্তভোগী আমিন উদ্দিনের আভিযোগ। এর আগে ওই সম্পত্তি দখলের জন্য কয়েক দফা চেষ্টা করেন মানিক রয়েল। সে লৌহজং উপজেলার খলাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা এবং একজন ভূমিদস্যু।

এর আগেও তার বিরুদ্ধে সরকারী খাল ও সওজের জমি দখলের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া এক হিন্দু পরিবারের জমি জোর করে বিক্রি করতে বাধ্য করে তাকে দেশ ছাড়া করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে, লৌহজং উপজেলার খলাপাড়া এলাকায় বৃদ্ধ আমিন উদ্দিন পরিবারের সম্পত্তি দিঘদিন জোর করে দখলের চেষ্টা করছে রয়েল।

এর আগে ওই একই এলাকার সড়ক ও জনপদের জমি ভরাট করে দখলে নিয়ে তা মাসিক ভাড়া দিয়েছে সে। সরকারী খাল অবাধে ভরাট করে আবাসন প্রকল্পের রাস্তা বানিয়ে বিক্রি করছেন মানিক রয়েল। এছাড়া আবাসন প্রকল্পে পড়া জমি বিক্রি করতে না চাওয়ায় খলাপাড়া গ্রামের রাখাল সরকার নামের এক লোককে মারধর করে সম্পত্তি বিক্রি করতে বাধ্য করেছেন তিনি। এছাড়া আবাসন ব্যবসা করার জন্য কাজিরগাওঁ এলাকায় নির্বিচারে কৃষি জমি ভরাটের পায়তারা করছেন রয়েল।

এদিকে উপজেলার খেদেরপাড়া গ্রামে বৃদ্ধা আমিন উদ্দিনের পরিবারের ৬১ বছর ধরে ভোগ দখলে থাকা পৈত্রিক সম্পত্তি জোড় করে দখলে নেওয়ার চেষ্টা করছে সে। ওই সম্পত্তি দখল করতে না পেরে জমির মালিক আমিন উদ্দিন ছেলে সোহেকে (৩৬) মারধর করেছেন। এ ঘটনায় লৌহজং থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

স্থানীয় একাধিক বাসিন্দা বলেন, দির্ঘদিন যাবৎ অসৎ উপায়ে মালিকানা নিয়ে বিরোধীয় জমি অল্পদামে কিনে ভরাট করে বেশি দামে বিক্রি করে আসছেন মানিক রয়েল। আবাসন প্রকল্প করতে গিয়ে একদিকে যেমন নির্বিচারে কৃষি জমি ভরাট করছেন অন্যদিকে প্রকল্পে জোড় করে মানুষকে সম্পত্তি বিক্রি করতে বাধ্য করছেন। প্রকল্পের মধ্যে পরলে সরকারী সম্পত্তিও জোড় করে দখলে নিচ্ছেন। খলাপাড়া গ্রামে আবাসন প্রকল্প করতে গিয়ে তিনি ওই গ্রামের দুলাল মিয়ার বাড়ির সামনের সরকারী খাল ভরাট করে রাস্তা তৈরী করেছেন।এ ব্যাপারে স্থাণীয় মানিক বেপারী বলেন, আমাদের খলাপাড়া গ্রামে আবাসন প্রকল্প বানিয়ে বিক্রি করছেন রয়েল। এই আবাসন প্রকল্পের রাস্তা তৈরি করতে গিয়ে তিনি একটি সরকারী খাল ভরাট করে তার উপর দিয়ে রাস্তা তৈরি করেন। সম্প্রতি লৌহজং উপজেলা খেদেরপাড়া বাসস্ট্যান্ডের পূর্ব পাশে বৃদ্ধা আমিন উদ্দিনের জমি জোড় করে দখল করার চেষ্টা করছেন রয়েল। ওই সম্পত্তি দখল করতে না পেরে ৬১ বছর ধরে দখলে থাকা সম্পত্তি মালিকদের মারধর ও হুমকি ধামকি প্রদান করছেন রয়েল।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী আমিন উদ্দিন বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ রয়েল আমার পৈতৃক সম্পত্তি দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। শনিবারের দুপুরে সে দলীয় লোকজন নিয়ে সর্বশেষ আমার জমিতে এসে আমার জমি দখলের চেষ্টা করে। এর আগেও কয়েকবার আমার জমি দখলের চেষ্টা চালাইছে সে ,না পেরে আমার ছেলেকে মারধর করে আমাকে প্রতিনিয়ত হুমকি ধামকি দিচ্ছে। আমি তার ভয়ে একা চলাফেরা করতে পারছি না।

ওই জমি দখলে থাকা অপর ভোক্তভোগী মো. আলী আকবর (৫৫) জানান, আমার শ্বশুর মৃত হাফিজ উদ্দিন বেপারী ১৯৬৩ সাল এই সম্পত্তি ক্রয় সূত্রে মালিক হন। আমি তার মেয়েকে ৩০ বছর আগে বিয়ে করার পর থেকে এই জমি চাষাবাদ করে ফসল ফলিয়ে জীবিকা চালাই। হঠাৎ রয়েল নামের এক ব্যক্তি এসে বলে জমি তার আমাদের জমি ছেড়ে দিতে বলছে। জমি নিয়ে আদালতে আমাদের একটি মামলা চলমান রয়েছে।অপর জমির মালিক আমিন উদ্দিনের স্ত্রী কোহিনুর বেগম (৪৮) বলেন আমার বিয়ের পর হতে দেখছি আমার স্বামী এ জমিতে বিভিন্ন প্রকার ফসল ফলিয়ে জীবিকা চালাইতে । আমরা গরীর মানুষ এ জমিটুকু চাষাবাদ করে জীবিকা চলে। মানিক নামে এক ব্যক্তি এই জমিটি তার দাবি করে আমার ছেলেকেও মারধর করেছে।তথ্য সূত্রে জানাগেছে, ওই সম্পত্তির মালিক মৃত হাফিজ উদ্দিন বেপারীর ওয়ারিশ আমিন উদ্দিন বেপারী, মো. বাবুল বেপারী, সবেদা বেগম, নুরজাহান বেগম, হীরা বেগম, মনোয়ারা বেগম বিভিন্ন মৌসুমি ফসল চাষাবাদ করে জমিটি দখলে আছেন। তবে তারা দুই বছর আগে ২০২২ সালে ওই জমির খাজনা দিতে গেলে স্থাণীয় ভূমি অফিসে গিয়ে জানতে পারে তাদের পিতা মৃত হাফিজ উদ্দিন বেপারী নাম আর এস পর্চায় লিপিবদ্ধ না হয়ে এই জমি অন্য এক ব্যাক্তির নামে আর এস রেকর্ড হয়েছে। পরে তারা এ নিয়ে মুন্সীগঞ্জ যুগ্ন জেলা জজ ২য় আদালতে দেওয়ানী মোকদ্দমা নং ২৫৬ /২০২২ দায়ের করেছেন। কিন্তু রয়েল যাদের নামে আরএস রেকর্ডে ওই সম্পত্তি রেকর্ড হয়েছে তাদের থেকে কমদামে সম্পত্তিটি ক্রয় করে এখোন আমিন গংদের সম্পত্তি হতে উচ্ছেদের পায়তারা করছেন।এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মো. মানিক রয়েলের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি আমার জমিতে গিয়েছিলাম । ওই সম্পত্তি আমি ক্রয় সূত্রে মালিক আমি কারো জমি জোর করে দখল করতে যাইনি। তবে সওজ ও সরকারী খাল দখলের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, সওজ তাদের জমির উপরে সাইনবোর্ড টানিয়ে রেখেছে আমি তাদের জমি দখল করিনি সরকারী খাল দখলের বিষয়ে ভূমি অফিস বিষয়টি জানে বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে লৌহজং উপজেলা সহকারী কমিশন (ভূমি) মো. ইলিয়াস সিকদার বলেন, বিষয়টি আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম। আমি কোন লিখতে অভিযোগ পাইনি। খোজ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।