Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি অর্থনীতি
  6. খেলাধূলা
  7. চাকরি-বাকরি
  8. জাতীয়
  9. জীবনের গল্প
  10. ধর্ম
  11. নির্বাচনী হাওয়া
  12. ফিচার
  13. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  14. বিনোদন
  15. রাজধানী
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গাইবান্ধা জেলা কারাগারে নারী হাজতিকে নির্যাতনে দুই কারাকর্মকর্তাকে স্ট্যান্ডরিলিজ /

নিউজ রুম
এপ্রিল ২০, ২০২৪ ১২:১২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি: গাইবান্ধা জেলা কারাগারে এক নারী হাজতিকে নির্যাতনের অভিযোগে প্রধান কারারক্ষীসহ এক মহিলা কারারক্ষীকে তাৎক্ষণকি বদলি করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার  রাতে রংপুর কারা উপমহাপরির্দক মো.তৌহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরতি পত্রে তাদরে পৃথক এ অফসি আদশে জারি করা হয়।

বদলিকৃতরা হলনে জেলা কারাগাররে প্রধান কারারক্ষী মো. আশরাফুল ইসলাম ও কারারক্ষী সাবানা বেগম।
আশরাফুল ইসলামকে দিনাজপুর জেলা কারাগারে ও সাবানা বেগমকে ঠাকুরগাঁও জেলা কারাগারে বদলি করা হয়েছে। বদলিকৃদের কারাগারে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যোগদানরে নির্দেশ দেওয়া হয়ছে। নির্যাতনরে অভিযোগকারী নারী হাজতি র্মোশেদা খাতুন সীমা দিনাজপুরে বীরগঞ্জ উপজলোর চৌপুকুরিয়া গ্রামরে তোফাজ্জল হোসেনের মেয়ে। তিনি গোবন্দিগঞ্জ থানার মাদক মামলার আসাম। সীমা প্রায় পাঁচ বছর ধরে গাইবান্ধা জেলা কারাগারে বন্দি আছেন।

এর আগে গত ১৬ এপ্রিল কারাগারে নির্যাতনরে অভিযোগ তুলে নির্যাতনকারীদরে বিরুদ্ধে  আইনি ব্যবস্থা নিতে গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেলিনে সীমার মা করমিন নেছা।

গত মঙ্গলবার (১৬ এপ্রলি) জেলা প্রশাসককে দেয়া লিখিত অভিযোগ উল্লেখ করনে, হাজতি র্মোশেদা খাতুন সীমা প্রায় ৫ বছর ধরে গাইবান্ধা জেলা কারাগারে বন্দি । কিছুদিন আগে কারাগারে কর্মরত সুবেদার আশরাফুল ইসলাম ও মহিলা কয়েদি (রাইটার) মেঘলা খাতুনরে মধ্যে চলমান অবৈধ র্কাযকলাপ দেখে ফেললে নারী হাজতি সীমা।

বিষয়টি জানতে পেরে সুবেদার আশরাফুল ও মহিলা কয়েদি মেঘলা খাতুন সীমার ওপর ক্ষিপ্ত হন। ঘটনা জানাজানির ভয়ে তারা কারাগারের ভেতরে সীমাকে বিভিন্ন ভাবে মানসিক নির্যাতন করতে থাকেন। হাজতি সীমা এসব ঘটনা জানিয়ে জেল সুপারের কাছে বিচারের দাবি জানালে সুবেদার আশরাফুল তাকে ভয়-ভীতি ও হুমকি দেন।

এক র্পযায়ে ২০ র্মাচ দুপুরে সুবেদার আশরাফুলরে নেতৃত্বে মহিলা কয়েদি মেঘলা,রেহানা, আলেফা এবং কারারক্ষী সাবান বেগম ও তহমিন সহ কয়েকজন তাকে শারীরিক নিযার্তন করে।
নির্যাতনের শিকার হাজতির মা মোছাঃ করিমন নেছা এর অভিযোগের ভিত্তিতে গাইবান্ধা জেলা কারাগারে তদন্ত শুরু করেছেন গাইবান্ধার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মশিউর রহমান।

দৈনিক লাখোকণ্ঠে মহিলা হাজতির নির্যাতনের অডিও প্রকাশিত হওয়ার পরে এটি কতৃপক্ষের নজরে আসে।



এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।