Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আবহাওয়া
  6. কৃষি অর্থনীতি
  7. খেলাধূলা
  8. চাকরি-বাকরি
  9. জাতীয়
  10. জীবনের গল্প
  11. ধর্ম
  12. নির্বাচনী হাওয়া
  13. ফিচার
  14. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  15. বিনোদন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আগামীকাল থেকে ইলিশ ধরায় ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু / উপকূলের জেলে মৎস্যজীবিদের মাঝে হতাশা ও উৎকন্ঠা

এস. এম সাইফুল ইসলাম কবির
অক্টোবর ১১, ২০২৩ ৮:১৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বাগেরহাট প্রতিনিধি, লাখোকন্ঠঃ আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে ইলিশ ধরায় ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা। মা ইলিশ রক্ষায় মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত ইলিশ ধরা, বিক্রয় ও পরিবহন নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। অপরদিকে,সাগরে বার বার বৈরী আবহাওয়ার কবলে পড়ে এবার জেলেরা কাংখিত মাছ ধরতে পারেননি। নতুন করে মাছ ধরা বন্ধের ঘোষণায় উপকূলের জেলে মৎস্যজীবিদের মাঝে হতাশা ও উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে।

ভূক্তভোগী জেলেরা জানান, গত ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়ে তারা সাতবার বৈরী আবহাওয়ার কবলে পড়েছেন। উত্তাল সাগরে মাছ ধরতে না পেরে খালি বোট নিয়ে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছেন ফলে তারা বিপুল আর্থিক লোকসানে পড়েছেন।

পিরোজপুরের পাড়েরহাটের মৎস্য আড়ৎদার মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, এবছর জেলে মৎস্যজীবিরা সাগরে তাদের কাংখিত মাছ ধরতে পারেননি। সাগরে গিয়েই জেলেরা ক্রমাগত দূর্যোগের কবলে পড়েছেন।
বরগুনা জেলা ফিশিং ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, উপকূলের জেলে মৎস্যৗজীবিরা ভালো নেই। মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞার বেড়াজাল ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে এবার জেলে মৎস্যজীবিরা অপূরণীয় ক্ষতির সম্মূখীন হয়েছেন। মা ইলিশ রক্ষায় ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা সমর্থন করে তিনি ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞার সময় সীমা কমিয়ে এনে ভারতের সাথে মিল রেখে একই সময়ে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবী জানান।

শরণখোলার “এফবি মা বুশরা” ফিশিংবোটের মালিক বেলায়েত হোসেন ও “এফবি তানজিরা”এর মালিক মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে তাদের ফিশিংবোট ৭ বার সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে বৈরী আবহাওয়ায় মাছ ধরতে না পারায় ৭ বারই তাদের লোকসান হয়েছে। ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞার সময় দেশীয় জেলেরা মাছ ধরতে না পারলেও পাশ্ববর্তী দেশের জেলেরা ঠিকই মাছ ধরে নিয়ে যায় বলে ঐ ফিশিংবোট মালিকরা জানান।

শরণখোলা ফিশিং ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন বলেন, সাগরে মাছ ধরতে ফিশিংবোট পাঠাতে একেকটি বোটের পিছনে কমপক্ষে তিন চার লাখ টাকা ব্যয় হয়। এবছর সাগরের আবহাওয়া সাত দফা খারাপ হওয়ায় জেলেরা মাছ ধরতে পারেনি ফলে বিপুল পরিমাণ লোকসানের মুখে জেলে মহাজনদের পথে বসার উপক্রম হয়েছে। প্রতি বছর ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে সাগরে গিয়েই জেলেরা বারবার প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে পড়ে। ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞার পরে বর্তমানে আবার ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞার খবরে বেকার হওয়া জেলেদের মাঝে হতাশা ও উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে বলে আবুল হোসেন জানিয়েছেন।
শরণখোলা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা বিনয় কুমার রায় বলেন, মা ইলিশ রক্ষায় ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত নদী ও সাগরে ইলিশ ধরা, বিক্রয় ও পরিবহন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করলে জেল জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও ইলিশ গবেষক ডঃ মোঃ আনিসুর রহমান বলেন, জেলেদের স্বার্থে তাদের দাবী বাস্তবায়নে বঙ্গোপসাগরে ৬৫ দিনের মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞার সময় সীমা পুনঃনির্ধারণ করে ভারতের সাথে মিল রেখে একই সময়ে নিষেধাজ্ঞার দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করা যেতে পারে।



এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।