Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি অর্থনীতি
  6. খেলাধূলা
  7. চাকরি-বাকরি
  8. জাতীয়
  9. জীবনের গল্প
  10. ধর্ম
  11. নির্বাচনী হাওয়া
  12. ফিচার
  13. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  14. বিনোদন
  15. রাজধানী
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পদ্মা সেতুর সুফল পাচ্ছে সাগরকন্যা কুয়াকাটা, বাড়ছে পর্যটক

বার্তা কক্ষ
ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৩ ৯:০৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পদ্মা সেতুর সুফল পাচ্ছে সাগরকন্যা কুয়াকাটা। দিনদিন বাড়ছে দেশি বিদেশি পর্যটকের সংখ্যা। আবাসিক হোটেল-মোটেল, কটেজ এবং খাবার হোটেলসহ সকল বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এখন সরগরম হয়ে উঠেছে। এটি দেশের অন্যতম একটি পর্যটন কেন্দ্র। এখানে রয়েছে নৈস্বর্গীক সৌন্দর্য্য দীর্ঘ ১৮ কিলোমিটার সৈকত। একই স্থানে দাঁড়িয়ে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখা যায়।

গত দুই তিন বছর আগে হোটেল মোটেল খালি পড়ে থাকলেও বর্তমানে হিমসিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। আগে যেমন ফেরি পারাপারের ভোগান্তি ছিলো। এখন পদ্মা সেতুর পাশাপাশি সড়ক যোগাযোগ উন্নতি হয়েছে। আর এ কারণেই কুয়াকাটায় পর্যটকের সংখ্যা বেড়েছে। একই সাথে বাণিজ্যিক ভাবে সমান তালে এগিয়ে যাচ্ছে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো।
স্থানীয়রা জানান, পদ্মাসেতু চালু হওয়ার পর পরই কুয়াকাটার আমুল পরিবর্তন হয়েছে। তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন স্থাপনা পাশাপাশি পর্যটকদের আকর্ষণে নেয়া হচ্ছে নানা ধরনের উদ্যোগ। ইতোমধ্যে গড়ে উঠেছে পাঁচ তারকামানের আবাসিক হোটেল মোটেল ও রিসোর্ট। এছাড়া রয়েছে উন্নতমানের খাবার হোটেল ও রেস্তোরাঁ। এ থেকে প্রতি সপ্তাহে চার থেকে পাঁচ কোটি টাকা আয় করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সূত্রে জানা গেছে, কুয়াকাটায় অ্যাসোসিয়েশনভুক্ত হোটেল-মোটেল রয়েছে ৭৪টি। এর বাইরে ৫৬টি হোটেল-মোটেল রয়েছে। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণির হোটেল রয়েছে ১৫টির মতো। এতে সর্বোচ্চ ১৫ হাজারের মতো পর্যটক রাত যাপন করতে পারবেন। এখানকার ছোট বড় সকল আবাসিক হোটেলে গড়ে সকল সিট বুকিং হয়ে যায় প্রতিদিন।

কুয়াকাটা ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্ট এসোসিয়েশন কুটুমের সাধারণ সম্পাদক মো হোসাইন আমির বলেন, দেশের গণ্ডি পেরিয়ে পর্যটন নগরী কুয়াকাটা এখন বিদেশী পর্যটকদের কাছেও ব্যাপক পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর পরই সাগরকন্য কুয়াকাটায় পর্যটকরা আসতে শুরু করেছে। তাই বিনিয়োগকারীরা ইতোমধ্যে এখানে নতুন নতুন স্থাপনা তৈরির পাশাপাশি পর্যটক আকর্ষণে নানা ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে।

ট্যুরিস্ট অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব কুয়াকাটা টোয়াক’র সভাপতি রুমান ইমতিয়াজ বলেন, একসময় ঢাকা থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত ১২ থেকে ১৪টি ফেরি সার্ভিস ছিল। আর কুয়াকাটায় পৌঁছাতে ২৪ থেকে ২৫ ঘণ্টা সময় লাগত। এখন মাত্র ছয় ঘণ্টায় পৌঁছানো যায়। এ কারণে পর্যটক বেশি হচ্ছে।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরিফ বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর পর্যটকের আগমন বেড়ে গেছে। বিশেষ করে সাপ্তাহিক ছুটি শুক্র ও শনিবারে পর্যটক বেশি থাকে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ জোনের পরিদর্শক হাসনাইন পারভেজ জানান, কুয়াকাটায় এসে সাগরে গোসল করতে নেমে কেউ দুর্ঘটনায় যেন না পড়েন, সে জন্য তারা বারবার সতর্ক করছেন। এছাড়া আগত পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় বিভিন্ন পর্যটন স্পটে ট্যুরিস্ট পুলিশের টহল রয়েছে।

কুয়াকাটা পৌর মেয়র মো. আনোয়ার হাওলাদার বলেন, ব্যবসায়ী এবং পর্যটকের নিরাপত্তা নিশ্চিতে কুয়াকাটা সৈকতসহ গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট পৌরসভার উদ্যোগে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে।



এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।