Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি অর্থনীতি
  6. খেলাধূলা
  7. চাকরি-বাকরি
  8. জাতীয়
  9. জীবনের গল্প
  10. ধর্ম
  11. নির্বাচনী হাওয়া
  12. ফিচার
  13. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  14. বিনোদন
  15. রাজধানী
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ফ্রিজে কাঁচা মুরগির মাংস কতদিন ভালো থাকে?

বার্তা কক্ষ
মার্চ ৫, ২০২৩ ১:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ফ্রিজে রাখা খাবার আজীবন ভালো থাকে না। আর খারাপ হলে বোঝার উপায় রয়েছে। ফ্রিজের কল্যাণে সারা সপ্তাহের বাজার সংরক্ষণ করা যায়। তবে ফ্রিজে রাখা মাংস কতদিন ভালো থাকে বা তা আদৌ খাবার উপযোগি আছে কিনা সে বিষয়ে অনেকেই সচেতন নন। 

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রিয় রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংস্থার তথ্যানুসারে ইটদিস নটদ্যাট ডটকমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় এক কোটি মানুষ প্রতি বছর দূষিত পোল্ট্রি খাওয়ার কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ে।

এমকি তাজা অবস্থাতেও মুরগির নানান রকম ব্যাক্টেরিয়া যেমন- ক্যাম্পাইলোব্যাক্টর, সেলমোনেলা এবং ক্লোস্ট্রিডিয়াম পারফ্রিজেন্স’য়ের মাধ্যমে বিষাক্ত হয়ে থাকে।

তাই ফ্রিজে রাখা মুরগির মাংস যত দিন থাকবে তত দ্রুত ও দীর্ঘসময় ধরে এতে ব্যাক্টেরিয়ার বিভাজন চলবে বা বিস্তার লাভ করবে। ফলে একসময় সেটা খাওয়ার অনুপযোগি হয়ে পড়বে।

‘ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অফ এগ্রিকালচার (ইউএসডিএ)’য়ের নির্দেশিকা অনুযায়ী, ফ্রিজে কাঁচা হাঁস, মুরগির মাংস ৪০ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা সাড়ে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার নিচে সংরক্ষণ করা যায়। এই অবস্থায় রাখা হলে পোল্ট্রি মাংস সর্বোচ্চ দুদিন পর্যন্ত সতেজ থাকে।

যদিও হিমায়িত খাবারের মান যাচাইয়ের ক্ষেত্রে ইউএসডিএ একটা নির্দিষ্ট নির্দেশিকা দিয়ে থাকে। কিন্তু বিভিন্ন পরিস্থিতি ও পরিবেশভেদে এতে তারতম্য ঘটতে পারে। এক্ষেত্রে কাঁচা মাংস এখনও ভালো আছে কিনা তা বোঝার কয়েটি লক্ষণ রয়েছে।

তারিখের দিকে নজর দেওয়া

ইউএসডিএ অনুআয়ী কাঁচা মুরগি, হাঁস বা এই ধরনের মাংস কিনে আনার পরপরেই ফ্রিজে রাখার সময় থেকে দুয়েক দিন পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যায়। আর এর মধ্যেই রান্না করতে হবে।

পরামর্শ: দীর্ঘদিন কাঁচা মুরগির মাংস ফ্রিজে রাখলে এর মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। সেক্ষেত্রে তা না খাওয়াই ভালো। এতে ‘ফুড পয়েজনিং’ হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

রংয়ের পরিবর্তন

মুরগির মাংস ভালো আছে কিনা তা বোঝার অন্যতম উপায় হল রং পরীক্ষা করে দেখা। সাধারণত মাংস নষ্ট হয়ে গেলে তার বর্ণে পরিবর্তন আসে।ইউএসডিএ’র নির্দেশনা অনুযায়ী ফ্রিজে রাখা মাংসের সময়সীমা শেষের দিকে চলে আসলে তা পরীক্ষা করে দেখতে হবে। সাধারণত কাঁচা মুরগির মাংস তাজা থাকলে উজ্জ্বল সাদা চর্বিযুক্ত হালকা গোলাপি, ফ্যাকাশে নীলচে সাদা বা হলদে দেখাবে।যদি, হলদে চর্বি সবুজ বা ধূসর হয়ে যায় তাহলে বুঝতে হবে এটা নষ্ট হয়েছে। তাই ফেলে দিতে হবে।

দুর্গন্ধ

তাজা কাঁচা মাংসে কোন দুর্গন্ধ থাকে না। ফ্রিজে থাকা পঁচা মাংসে এমন দুর্গন্ধ হয় যা হিমায়িত অবস্থাতেও বোঝা যায়। ফ্রিজে থাকা মাংস ভালো আছে কিনা বুঝতে হলে তা প্রথমে বরফ থেকে বের করে দেখতে হবে এতে কোনো দুর্গন্ধ, টক টক বা মাছের মতো বা সালফিউরিকের মতো গন্ধ আছে কিনা। এমনটা বোঝা গেলে তা যত দ্রুত সম্ভব ফেলে দিতে হবে।

টেক্সার দেখে নেওয়া

কাঁচা মুরগির মাংস দেখতে বা গন্ধে ভালো মনে হলেও রান্নার আগে এর গঠন পরীক্ষা করে নেওয়া উচিত। মুরগির মাংস ভালো থাকলে তা দেখতে চকচকে, স্পর্শে আর্দ্র এবং কিছুটা পিচ্ছিল অনুভূত হবে। তবে মাংস নষ্ট হলে অনেক বেশি পিচ্ছিল, আঠালো এবং বিজল বিজলভাব অনুভূত হবে।এমন দেখা দিলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তা ফেলে দেওয়া উচিত।



এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।