Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি অর্থনীতি
  6. খেলাধূলা
  7. চাকরি-বাকরি
  8. জাতীয়
  9. জীবনের গল্প
  10. ধর্ম
  11. নির্বাচনী হাওয়া
  12. ফিচার
  13. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  14. বিনোদন
  15. রাজধানী
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব হিসেবে যোগদান করলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খান।

নিউজ রুম
জুন ৭, ২০২৪ ৪:২৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

লাখোকণ্ঠ প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব হিসেবে যোগদান করলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খান। কাল প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী ও প্রেস সচিব ( সচিবের মর্যাদা) নরেন্দ্র মোদীর শপথ অনুষ্ঠানে যাচ্ছে বলে রানা যায় ।

সাংবাদপত্রের নতুন ধারা  ও নব সাংবাদিকতায় নাঈমুল ইসলাম খান অবদান।

আশির দশকের শেষের দিকে স্বৈরাচারি শাসনের প্রতিবাদে মূল ধারার সাংবাদিকতার পাশাপাশি একটি প্রতিবাদি সাংবাদিকতার ধারা সৃষ্টি হয়। এ সময় বিচিন্তা, খবরের কাগজসহ বেশ কিছু সাপ্তাহিক বের হয়।

স্বৈরাচার পতনের প্রেক্ষাপটে ১৯৯০ সালের পর বাংলাদেশে সংবাদপত্র প্রকাশনার ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন সূচিত হয়।
১৯৯০ এর পর ভাষার নতুনত্ব,তথ্য বিন্যাস ও অবয়ব নিয়ে প্রকাশিত হয় ‘আজকের কাগজ’। এক ঝাঁক তরুণ প্রতিশ্রুতিশীল সাংবাদিক, পত্রিকাটির নিজশ্ব সম্পাদকীয়, উপসম্পাদকীয় বাহিরেও, বিভিন্ন সাংবাদিক ও চিন্তাশীল ব্যক্তিদের মতামতকে প্রাধান্য দিয়ে প্রকাশ করা হতো।
পরবর্তীতে প্রায় অধিকাংশ সংবাদপত্রই এই ধারাটি গ্রহন করে।

পত্রিকাটির একটি বৈশিষ্ট্য ছিলো যে পাতায় যে নিউজ যেতো ঐ পাতাতেই তা শেষ হতো।
বলার অপেক্ষা রাখেনা যে, সংবাদপত্রে এই নতুন ধারার প্রবর্তক ছিলেন ইমিরেটাস সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান।
১৯৯০ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত সম্পাদক হিসাবে আজকের কাগজে তিনি দায়িত্ব পালন করেন।

নাঈমুল ইসলাম খান প্রথম ১৯৮২ সালে প্রকাশিত মাসিক পত্রিকা ‘সময়’ সম্পাদনা করে। পরবর্তীতে এটি ‘খবরের কাগজ’ হিসেবে প্রকাশিত হয়। এ পত্রিকাটি ১৯৮৭ সালে সাপ্তাহিক হিসেবে শুরু হয়।

২০০২ সালে তিনি উপদেষ্টা সম্পাদক হিসেবে নিয়োগ পেয়ে আজকের কাগজে দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৯২ সালে তিনি আরেকটি বাংলা ভাষার ‘দৈনিক ভোরের কাগজ’ প্রতিষ্ঠা করেন। দায়িত্ব ত্যাগ করার পর প্রথম আলোর’র মতিউর রহমান সম্পাদনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। আজকের কাগজ ও ভোরের কাগজ একই সংবাদশৈলীতে প্রকাশ হতো।

২০০৩ সালে তিনি ‘নতুনধারা’ নামে আরেকটি দৈনিক প্রকাশের চেষ্টা করেন, এবং ২০০৭ সালে তিনি দৈনিক ‘আমাদের সময়’ সম্পাদনা শুরু করেন, পত্রিকাটি বাংলাদেশের সংবাদপত্রের ইতিহাসে মাইলফলক অর্জন করেছিলো, বিষেষ করে প্রচার ও সংবাদ উপস্থাপনার ক্ষেত্রে।

বর্তমানে নাঈমুল ইসলাম খানের প্রতিষ্ঠিত তিনটি দৈনিক পত্রিকা এরমধ্যে ইংরেজি দৈনিক আওয়ার টাইমে কর্মরত সকলেই নারী ছিলেন , এটি নি:সন্দেহে বাংলাদেশের সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে একটি নতুন ধারা সৃষ্টি করেছে।
‘আমাদের নতুন সময়’ পত্রিকাতে সংক্ষিপ্ত আকারে বিভিন্ন পেশার মানুষের মতামত তুলে ধরা হয়, যা সচরাচর অন্য দৈনিকগুলোর ক্ষেত্রে দেখা যায় না।

নাঈমুল ইসলাম খান সবসময়েই নতুন কিছু সৃষ্টি করেন, যার মাধ্যমে সৃষ্টি হয়েছে শত শত প্রতিশ্রুতিশীল সংবাদকর্মী, যারা আজ বিভিন্ন গণমাধ্যমের শীর্ষ নেতৃত্বে আছেন।

নাঈমুল ইসলাম খান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব নিযুক্ত হওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশের সংবাদপত্র এবং সাংবাদিকতার
ক্ষেত্রে আরো একটি মাইলফলক অর্জিত হলো।

অভিজ্ঞতা ও প্রজ্ঞা দিয়ে তিনি রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ এ সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে সংবাদপত্রের অর্থবহ উন্নয়নে ভূমিকা রাখবেন এটি সংবাদ মাধ্যমের সকলেরই কাম্য।



এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।