Ad: ০১৭১১৯৫২৫২২
১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ || ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আইন শৃংখলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আবহাওয়া
  6. কৃষি অর্থনীতি
  7. খেলাধূলা
  8. চাকরি-বাকরি
  9. জাতীয়
  10. জীবনের গল্প
  11. ধর্ম
  12. নির্বাচনী হাওয়া
  13. ফিচার
  14. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  15. বিনোদন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালামপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিস পারুল সিন্ডিকেটের কবল থেকে মুক্তি মিলছে না!

নিউজ রুম
জানুয়ারি ১৪, ২০২৪ ১০:৪১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

কাজী মিজানুর রহমান,(ঢাকা ) ধামরাই প্রতিনিধিঃ নানা অনিয়ম আর দূর্নীতির সাথে যুক্ত থাকায় কালামপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সাবেক কর্মচারী টি.সি মোহরার আব্দুস সাত্তারের স্ত্রী বরখাস্ত কৃত নকল নবিশ পারুল আক্তারের সিন্ডিকেট থেকে মুক্তি মিলছে না ঢাকার ধামরাই উপজেলার কালামপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের।

সহযোগী দৈনিকে প্রকাশিত ও সরেজমিনে অনুসন্ধানে জানা যায়, দুর্নীতি ও নানা অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলাধীন কালামপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের ৪ জন নকল নবিশকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একই সঙ্গে অবসরপ্রাপ্ত টি.সি মোহরার আব্দুস সাত্তারকে একজন বহিরাগত ব্যক্তি বিবেচনায় দাপ্তরিক কাজ-কর্মে হস্তক্ষেপ বন্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণসহ অফিস আঙিনায় প্রবেশ নিষিদ্ধকরণের জন্য ঢাকা জেলার জেলা রেজিষ্টারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া ৪ জন নকল নবিশ হলেন পারুল আক্তার, বজলুর রহমান, আব্দুর রহিম এবং আরিফুল ইসলাম। গত ১৯ ডিসেম্বর জেলা নিবন্ধন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক উম্মে কুলসুম স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

ঢাকা জেলার সবচেয়ে বড় উপজেলা ধামরাই ১৬ ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত ধামরাই উপজেলা। ধামরাই উপজেলার কালামপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে বছরে আনুমানিক ১৫/১৬ হাজার দলিল সম্পাদিত হয়।

সরকারিভাবে একটি সাব রেজিস্ট্রি অফিসে ১ জন সাব রেজিস্ট্রার, ১ জন সহকারী, ২ জন মোহরার, ১ জন পিয়ন ও প্রয়োজন অনুয়ায়ী (এক্সট্রা মোহরার) নকলনবিশ থাকার কথা।নিয়ম মোতাবেক দলিল যাচাই-বাছাই করে থাকেন সাব রেজিস্ট্রার অথবা তার সহকারী। কিন্ত কালামপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে সরকারি নিয়ম-নীতিকে বৃদ্ধাংগুলি দেখিয়ে বরখাস্তকৃত নকল নবিশ পারুল আক্তার গড়ে তুলেছিলেন সিন্ডিকেট।

দলিল লেখকরা অফিসে দলিল নিয়ে প্রবেশ করে সবার আগে নকল নবিশ পারুল আক্তারের হাতে দলিল দিলে তিনি দলিল চেক করার নামে কোন দলিলে কত টাকা ঘুষ দিতে হবে তা ঠিক করে দলিলে একটি গোপন সংকেত চিহ্ন লিখে দিলেই তারপর সাব রেজিস্ট্রার সেই দলিল সম্পাদন করতেন।

সাব রেজিস্ট্রারকে ম্যানেজ করে নকলনবিশ পারুল আক্তার কালামপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে রাজস্ব লুট করতে গড়ে তুলেছিলেন একটি অসাধু সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটের মূল হোতা নকল নবিশ পারুল ও তাদের অনুসারী কিছু দলিল লেখকরা। এরা জমির শ্রেনীকে পরির্বতন করে দলিল সম্পাদন করে সরকারকে রাজস্ব থেকে বঞ্চিত করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

সাধারণ দলিল লেখকরা তার কাছে অসহায়। আর এ সকল বিষয়ে অভিযোগ পাওয়ার পর পারুল আক্তারসহ অপর তিন নকল নবিশকে বরখাস্ত করা হয়। নিবন্ধন অধিদপ্তর থেকে ৪ জন বরখাস্ত হওয়ার পর অবসরপ্রাপ্ত সাত্তার ও তার স্ত্রীপারুল আক্তার সিন্ডিকেট আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। অফিস আঙিনায় প্রবেশে কঠোর নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও পারুল-সাত্তার সাব রেজিস্ট্রার আবদুল মতিনের কক্ষে সার্বক্ষণিক অবস্থান করেন। এমনকি সেবা গ্রহিতাদের নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের মাধ্যমে অনৈতিক লেনদেনে বাধ্য করছে পারুল সিন্ডিকেট। সাব রেজিস্ট্রার আবদুল মতিনের চোখের সামনে এ ধরনের অনিয়ম চললেও বরখাস্তকৃত পারুল ও তার স্বামী সাত্তার সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে তিনি অপারগ।

পারুল আক্তার এখনও অফিসের কাগজপত্র বুঝিয়ে দেননি। এছাড়াও সাত্তার-পারুল সিন্ডিকেট অফিসের গুরুত্বপূর্ণ দলিল কিংবা ফাইলপত্র গায়েব করে দিতে পারে বলে বিশস্ত সূত্রে জানা যায় ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কালামপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে কর্মরত কয়েক জন জানান বরখাস্ত হয়েও তারা কিভাবে এই অফিস নিয়ন্ত্রণ করছে? সেট কারো বোদগম‍্য নয়,যথাযথ কতৃপক্ষকে আরও কঠোর ভাবে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করার দাবী জানিয়েছেন সাধারণ দলিল লেখকবা।

  • বিষয় :


এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।